২০ বছর পালিয়ে থেকেও শেষ রক্ষা হলো না তার

প্রকাশিত: ৫:২১ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ২৮, ২০২২

হত্যা মামলায় ফাঁসির আসামি সৈয়দ আহম্মেদ (৬০)। শাস্তির ভয়ে নাম বদলে ভুয়া দুটি জাতীয় পরিচয়পত্র বানিয়ে মাজারে মাজারে ঘুরে বাবুর্চি বা দারোয়ানের কাজ করতেন তিনি। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না।

বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের আকবর শাহ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে র্যাব। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন র্যাব-৭ অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল এমএ ইউসুফ জানান।

গ্রেফতারকৃত সৈয়দ আহম্মেদের বাড়ি লোহাগাড়ার আমিরাবাদে। জমি নিয়ে বিরোধে দুজন হত্যা মামলায় ফাঁসির আসামি তিনি।

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে লেফটেন্যান্ট কর্নেল এমএ ইউসুফ বলেন, জমির বিরোধে ২০০১ সালের নভেম্বর থেকে ২০০২ সালের মার্চের মধ্যে লোহাগাড়া উপজেলায় মাহমুদুল হক এবং তার বড় ভাই ব্যবসায়ী জানে আলমকে খুন করা হয়। দুই মামলার এজাহারেই আসামির তালিকায় সৈয়দ আহম্মদের নাম ছিল।

এর মধ্যে জানে আলম হত্যা মামলায় ২০০৭ সালে সৈয়দ আহম্মেদসহ ১২ জনকে মৃত্যুদণ্ড এবং আটজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত। পরে হাইকোর্টে সৈয়দ আহম্মেদসহ ১০ জনের ফাঁসির রায় বহাল থাকে।