জেবুননাহার জনি এর তিনটি কবিতা

প্রকাশিত: ১২:১৮ পূর্বাহ্ণ , জুলাই ১২, ২০২০
১.পাথর জোড়া চোখ
 
তৃষ্ণার্ত হেমন্তের কাহিনী খুলে বিদায়ের অপলক সুর তুলে
মন বিবাগী চোখে থমকে থাকে আল্পসের বরফ জমাট
শীতের ভোরে পা বাড়ায় আদম শিশু
স্নিগ্ধ ছায়া নজর কেড়ে মক্তব মুখে
ব্যথার আগুন ছুঁয়ে নুপুর চরণে
মেঘডুম্বুর শাড়ীতে বজরায় চড়ে জলপরী
দূরে বাজে বিমূর্ত সাইরেন সংকেত
লোনা পানিতে আঁশটে পচা নোনা গন্ধ…
জ্বোনাক জ্বলা সন্ধ্যায় চায়ের চুমুকে পোড়ে ঠোঁট
নির্ঘুম চোখে মায়াবী পথের হাতছানি
—কি হচ্ছে এত রাতে জীর্ণ কুটিরে?
বন্ধ দরজায় কড়া নেড়ে নিবদ্ধ কিছুক্ষণ
আবার এগিয়ে চলে পাথর জোড়া চোখ
বিস্তৃত মাঠের কোনে জন্মে একখণ্ড শ্যাওলা
গাছের ডালে ওঠে রক্তিম সূর্য
শিশির ভেজা খড়ের পরশে-‘শুভ্রসকাল’
ঘোড়ার পিঠে চড়ে সুখের ঘর
পথের পথিক খুন হয় এ– দৃশ্য দেখে…!
 
 
২.রোমন্থন ও ফেরারি পরিক্রমা
 
আঁশালো উসকানিতে ছুটোছুটি করে রহস্যের ডানা
তিন- দুই- এক- উল্টো পরিক্রমায়
সূত্রপাতের অন্তর্বাসে শুরু হয় দিন যাপনের দিন
সুখ ছড়ানো পথে নীরব সুবাস ছড়ায় নিশি কন্যা
বশীর্ভূত হেয়ালিতার রোমন্থন উপাখ্যানে
দ্বৈরথ বিষাদ পুঞ্জি পড়ে কাশপাতায়
কাঁটার আঘাতে সুখ খোঁজে গোলাপ
খণ্ড চাঁদের আর্তনাদে উষ্ণ মানচিত্রে
ছায়ায় ছায়া ফেলে দ্রুত যাচ্ছে সবাই
তবু প্রতীক্ষিত গন্তব্যে পৌঁছাতে পারেনি কেউ…!
 
৩.তুমি তুমি ধ্বনি বাজে
 
আমার সকাল হয় না রবীন্দ্রনাথ না হলে
…এলেই রাত হয়ে যায়!
অনাবিল শাখা প্রশাখায় ছন্দের আড়ালে
মিষ্টি মিষ্টি রোদ মেখে আরও মিষ্টি হয়ে ওঠে ষোড়শী
আগুনে পোড়ে নিয়তির কারাগার
নিভৃত বৃত্তে নিশ্চল আবৃত্তে ঢাকা হৃদয়ের কাঁপন
তুমি বাজাও নীরব শিস, আমি ভাবি অপেক্ষার শেষ
অথচ সম্মুখে তুমি নেই!
তবু তোমার প্রতিচ্ছবি প্রলেপ লাগায় ক্ষত হৃদয়ে
দিবানিশি মন মাঝে ‘তুমি তুমি…’ ধ্বনি বাজে
স্মরণীয় উপত্যকার কাশবনে কাশফুলের কাশপাতায়
আর উদ্দীপনায় মিট মিট করে জ্বলে ঘর্মাক্ত ঘোর
মোহময় আবরণে নোঙর দোলায় অসীম বিন্যাসে
অকপটে খুলে যায় হৃদয় কপাট…