ভূমিহীনদের জন্য নির্মিত হচ্ছে ১১৯ বহুতল ভবন

প্রকাশিত: ১:৩৫ অপরাহ্ণ , মে ৮, ২০২২

কক্সবাজারে দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে জলবায়ু উদ্বাস্তু ও ভূমিহীনদের পুনর্বাসনের জন্য ১১৯টি ৫ তলা ভবন নির্মাণের কাজ। সরকারের অর্থায়নে প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে সেনাবাহিনী। কাজের অগ্রগতি ঘুরে দেখে সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ জানান, আগামী বছরের জুনে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।

বাঁকখালী নদী; এই নদীর একপাশে নির্মিত হচ্ছে জলবায়ু উদ্বাস্তুদের জন্য স্থায়ী নতুন ঠিকানা। গত ৪ মাস আগে শুরু হয় ১১৯টি ভবন নির্মাণের প্রাথমিক কাজ। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে ‘খুরুশকুল বিশেষ আশ্রয়ণ’ প্রকল্পের নির্মাণকাজ। মাত্র ৪ মাসের মধ্যে উঠে গেছে অনেক ভবনের ছাদ, আবার শেষ হয়েছে অনেক ভবনের ভিত্তি। কিছু প্রতিকূলতা থাকলেও নির্ধারিত সময়ের আগে কাজ শেষ করার লক্ষ্য নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর।

এদিকে শনিবার দুপুরে হেলিকপ্টারে প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পের খুরুশকুল বিশেষ আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজ পরিদর্শন করেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। সেনাপ্রধানকে প্রকল্পের সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন ৩৪ কনস্ট্রাকশন ব্রিগেডিয়ার কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মাসুদুর রহমান।

পরে সাংবাদিকদের সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বলেন, ইতোমধ্যে প্রকল্পের ৩০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। আগামী বছরের জুন মাসে প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।

আর আশ্রয়ণ প্রকল্পে জীবিকা নির্বাহের ব্যবস্থাসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, মসজিদ-মন্দির, খেলার মাঠ নির্মিত হওয়ায় দারুণ খুশি জলবায়ু উদ্বাস্তুরা।

কক্সবাজার বিমানবন্দর সম্প্রসারণের কারণে জলবায়ু উদ্বাস্তুদের জন্যে প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকারে প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৩৩৩ কোটি ৬২ লাখ টাকা। যেখানে স্থায়ী মাথা গোঁজার ঠাঁই পাবে ৩ হাজার ৮৮টি পরিবার।-সময় সংবাদ