বিবিসি বাংলার এক শ’ নারীর তালিকায় কক্সবাজারের রিমু

প্রকাশিত: ২:১৯ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ৩, ২০২০

বিবিসি বাংলার এক শ’ নারীর তালিকায় স্থান পেয়েছেন কক্সবাজারের রিমা সুলতানা রিমু। রোহিঙ্গা নারী ও শিশু শিক্ষার প্রসার, লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণ এবং নারীর অধিকার নিয়ে কাজের স্বীকৃতি হিসেবে এ তালিকায় অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন তিনি। নারী নির্যাতন ও বাল্য বিয়ে প্রতিরোধেও কাজ করতে চান রিমু। 

মানবতার প্রতীক রিমা সুলতানা রিমু। এ বছর বিবিসি বাংলার ১০০ নারীর তালিকায় স্থান পেয়েছে তার নাম। রোহিঙ্গা শরণার্থী পরিস্থিতি মোকাবেলায় মানবিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা, নারী ও শিশু শিক্ষার প্রসার, লিঙ্গ বৈষম্য দূরীকরণ, বয়সভিত্তিক স্বাক্ষরতা কার্যক্রম, রেডিও ব্রডকাস্ট ও থিয়েটার পারফরম্যান্সের মাধ্যমে শান্তি, নিরাপত্তা ও নারীর অগ্রগতি বিষয়ে কাজ করছেন রিমু।

বিবিসি বাংলার এমন সম্মান সামনে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা জোগাবে বলে মনে করেন তিনি।

রিমা সুলতানা রিমু জানান, আমার সোসাইটির এবং আমার পাশপাশের মানুষদেরকে নিয়ে একসাথে কাজ করে যাব।

২০১৯ সালে জাগো নারী উন্নয়ন সংস্থায় দায়িত্ব পালনের সময় জাতিসংঘের মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের গার্লস এ্যাম্বাসেডর নির্বাচিত হন রিমু। ইয়াং উইমেন লিডার্স ফর পিস-এর একজন সদস্যও তিনি। গ্লোবাল নেটওয়ার্ক অফ উইমেন পিসবিল্ডার্সের সক্রিয় কর্মী হিসেবে সংঘাতময় দেশ থেকে আসা কিশোরীদের কল্যাণে কাজ করছেন রিমু।

রিমু বলেন, কিভাবে নেতৃত্ব দিতে হয়, কিভাবে কাজ করতে হয় সেগুলো এখন শিখতে পেরেছে রোহিঙ্গারা। সেটা আমাদের জন্য অনেক গর্বের বিষয়।

তার এই বেড়ে উঠার পেছনে কাজ করেছে স্থানীয় বেসরকারী প্রতিষ্ঠান জাগো নারী উন্নয়ন সংস্থা। রিমুর এ সফলতায় গর্বিত তারা।

রামু জাগো নারী উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক শিউলী শর্মা বলেন, কক্সবাজার শিক্ষা ক্ষেত্রে অনেক বেশি পিছিয়ে আছে। এই জায়গায় বিকাশ একটা ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি।

রিমুর এমন সাফল্যে খুশী এলাকাবাসিও।

এলাকাবাসি জানান, রিমুর মতো আমরা সবাই হতে চাই। তার মতো একজন গ্রাম অঞ্চলের মেয়ে আজকে বিসিসির তালিকায় এসে আমাদেরকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশের দুইজন নারীর মধ্যে আমাদের রিমা সুলতানা রিমু একজন রোল মডেল হিসেবে দাঁড়িয়েছে।

আবদুর রহিম ও খালেদা বেগমের ৪ ছেলেমেয়ের মধ্যে রিমু দ্বিতীয়। কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজের এইচএসসি শিক্ষার্থী রিমা সুলতানা রিমু।