প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর মিরসরাই, রয়েছে সম্ভাবনা

প্রকাশিত: ১:৪৪ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ১৮, ২০২০

চট্টগ্রামের মিরসরাই এলাকার বাওয়াছাড়া সেচ প্রকল্পের কৃত্রিম লেক, পাহাড় আর ঝর্ণার মিতালী মোহিত করছে পর্যটকদের। তবে এই স্পটে অবকাঠামো গড়ে উঠেনি এখনো। দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে পর্যটকদের।

বাওয়াছড়ার সেচ প্রকল্প। এ যেন সুন্দরের সঙ্গে সুন্দরের মিতালী। পাহাড়ী ঝর্ণার মুখে বাঁধ। গড়ে উঠেছে কৃত্রিম  লেক। গ্রাম হেলান দিয়ে আছে সবুজ পাহাড়ে। এই স্নিগ্ধ সৌন্দর্য মুগ্ধ করছে পর্যটকদের।

পর্যটকরা জানান, খইওয়াছড়া পর্যন্ত এই এলাকায় অনেকটা ঝর্ণা আছে। তার মধ্যে বাওয়াছড়া লেকের দেড় কিলোমিটার পূর্বে হরিণমারা ঝর্ণা। এসবগুলোকে ইকো ট্যুরিজমের আওতায় এনে যদি উন্নয়নমূলক কাজগুলো হাতে নেয় তাহলে ভবিষ্যতে এটি সম্ভাবনাময় একটি জায়গা হবে।

তবে, পর্যটন অবকাঠামো গড়ে উঠেনি এখনো। তাই পর্যটকদের কিছুটা দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে।

পর্যটকরা জানান, বিস্তীর্ণ পাহাড় এলাকা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর। এখানে কেউ যদি বাস্তবে না আসে তাহলে বুঝতে পারবে না যে এই জায়গাটা কতটুকু সুন্দর। সরকার যদি উদ্যোগ নেয় তাহলে আরও পর্যটক আসবে।

চট্টগ্রামের বিভিন্নস্থানে ছড়িয়ে-ছিটে থাকা পাহাড়ী ঝর্ণা আর লেককে ঘিরে পর্যটন শিল্প বিকাশের সুযোগ তৈরি হয়েছে বলে মনে করেন পর্যটকরা।

আগত পর্যটকরা জানান, এখানে যারাই আসবেন তারা প্রকৃতির সঙ্গে মিশে যাবেন। আর সরকার যদি এটিকে গুরুত্ব দেয় তাহলে সরকার লাভবান হবে, এলাকা লাভবান এবং আমাদের দেশ লাভবান হবে।

ষড়ঋতুর বাংলাদেশে পর্যটন শিল্পের পরিকল্পিত বিকাশ হলে এ খাত হতে পারে অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি।