কোরবানির ঈদের পর পাল্টে গেছে সিলেটের পর্যটন খাত

প্রকাশিত: ১০:৩১ পূর্বাহ্ণ , আগস্ট ২১, ২০২০

ঈদের পর থেকে সিলেটের পর্যটন স্পটগুলোতে বাড়তে শুরু করেছে বিনোদনপ্রেমীদের উপস্থিতি। বিশেষ করে সাদাপাথর ও হাকালুকি হাওর পর্যটকদের কোলাহলে মুখর হয়ে উঠেছে। অবশ্য বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি।
এদিকে জাফলংসহ কয়েকটি স্পটে পাথর উত্তোলনের অনুমতির দাবিতে আন্দোলন করছেন শ্রমিকরা। তবে পাথর উত্তোলনের আর কোন সুযোগ না দেয়ার কথা জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন।
করোনার কারণে প্রায় পাঁচ মাস পর্যটকদের আনাগোনা ছিল না, সিলেটের পর্যটনস্পটগুলোতে। কোরবানির ঈদের পর পাল্টে গেছে সে চিত্র। বেশি ভিড় সৌন্দর্যমন্ডিত সাদাপাথ ও এশিয়ার অন্যতম হাওড় হাকালুকিতে।
দীর্ঘদিন পর খোলা আকাশের নিচে মুক্ত হাওয়ায় ঘুরে বেড়ানোর আনন্দে দারুণ খুশি ভ্রমণ প্রেমীরা। তবে মাইকিং করে ঘোষণা দেয়ার পরও স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না অনেকে।
পর্যটকরা বলছেন, করোনার কারণে আমরা কোথাও যেতে পাচ্ছিলাম না। অনেকদিন পরে এখানে এসে অনেক ভালো লাগছে। অনেক সুন্দর একটি জায়গা। এই পাথরগুলো যেন না তোলা হয় সেটাই দাবি করছি।
এদিকে জাফলং বিছানাকান্দিসহ অন্যান্য স্পটে পাথর উত্তোলনের অনুমতির দাবিতে আন্দোলন করছেন শ্রমিকরা। তারা বলছেন, অতি তাড়াতাড়ি যেন আমাদের পাথার তুলতে দেওয়া হয় সেই দাবি করছি।
পর্যটন শিল্পের ক্ষতি করে পাথর উত্তোলনের কোন সুযোগ নেই বলে জানিয়েছে সিলেট জেলা প্রশাসক কাজী এমদাদুল ইসলাম।
তিনি বলেন, অবৈধভাবে পাথর উত্তোলনের বিরুদ্ধে আমরা সোচ্চার ছিলাম, এখনও আছি।সিলেটবাসীকে এই বিষয়ে সহযোগিতা করতে হবে। প্রয়োজনীয় সংস্কার ও রক্ষণাবেক্ষণের মাধ্যমে সিলেটের পর্যটনস্পটগুলোকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলার দাবি, এসব এলাকায় ঘুরতে আসা পর্যটকদেরও।