লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়ে আক্রান্তের সংখ্যা দেশে এক লাখ ছাড়াল।

প্রকাশিত: ৪:৫২ অপরাহ্ণ , জুন ১৮, ২০২০

নভেল করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন ক্রমাগত ভাবেই বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর এই বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গেই বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও। আবার তার সাথে বাড়ছে মানুষের সীমাহীন দুভোর্গ। পুরো বিশ্বজুড়ে এখন এই করোনা ভাইরাসের কারনে মানুষ বিপর্যস্থ, তটস্থ এবং ভীত সন্ত্রস্থ হয়ে পড়েছে। বিশ্বজুড়ে গড়ে প্রায় এখন প্রতিদিন ১ লাখেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। বাংলাদেশে ও তার ব্যতিক্রম নয়। প্রতিদিনই আক্রান্ত এবং মৃত্যুর সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। গত ১৬ জুন দেশে অর্ধশতাধিকের বেশি মানুষের ৫৩ জনের মৃত্যু হয়। আর আক্রান্ত হয় ৩৮৬২ জন। যেটা দেশে একদিনের মৃত্যুর সর্বোচ্ছ রেকর্ড। আর এভাবেই প্রতিদিনই চলছে মৃত্যুর রের্কড ভাঙা গড়ার খেলা।

সারা বিশ্বে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে জন জীবন তার স্বাভাবিক গতি হারিয়েছে। মানুষের জীবনের ছন্দ পতন ঘটেছে। অনেক মানুষ বেকার হয়ে গেছে। অনেক মানুষ তার কর্ম হারাচ্ছে। আর কেউ কেউ তার প্রিয়জনদের হারিয়েছে জীবনের তরে। করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু প্রথম দিকে কম থাকলেও দিনে দিনে এটি ভয়ংকর থেকে অতি ভয়ংকরে রুপ নিয়েছে। দেশে প্রতিনিয়ত করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঘটনা বাড়ছে। গতকাল দেশে ৪ হাজার ৮ জন শনাক্ত হয়েছিল আর মৃত্যু হয়েছিল ৩৭ জনের। আজ শনাক্ত হয়েছে ৩ হাজার ৮ শত ৩ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ৩৮ জনের। আর এর মধ্যে দিয়েই পরিসংখ্যানে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা লাখ ছাড়িয়েছ। মোট আক্রান্ত হয়েছে এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন। আর মোট মৃত্যু হয়েছে এক হাজার তিনশত ৪৩ জন। অনেক বলছে,দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা সর্বোচ্ছ পর্যায়ে পৌছেঁছে। সংক্রমণ এমন পর্যায়ে চলে গেছে, অনেকে বাড়ির বাইরে বের না হয়েও আকান্ত হচ্ছে।

দেশে এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু এবং সংক্রমণ যা ঘটেছে তার মোট অর্ধেকই ঘটেছে এই মাসে জুনে। অতএব, অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করছে, দেশে এখন করোনা সংক্রমণের সর্বোচ্ছ পর্য়ায়ে রয়েছে। বাংলাদেশে গত ১০০ দিনে সংক্রামণের দিক দিয়ে বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী এবং জনসংখ্যায় ও বৃহৎ দেশ চীনকে ও ছাড়িয়ে গেছে। প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারত এবং পাকিস্তান কেও টপকে গেছে সংক্রামণের দিক দিয়ে। এভাবে চলতে থাকলেও সামনে আরো ভয়াবহ পরিণতির মুখোমুখি হতে হবে!
আর পুরো বিশ্বজুড়ে এখন পর্যন্ত ৮৪ লাখ ছাড়িয়েছ সংক্রমণ। আর মৃত্যু হয়েছে প্রায় সাড়ে চার লাখ। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন প্রায় ৪৪ লাখ মানুষ। সারা পৃথিবীজুড়ে মানুষ খুব ভয়াবহতার মধ্যে দিয়েই পার করছে দিন। বিশ্বের উন্নত অনুন্নত শক্তিধর প্রায় সবদেশেই এই করোনা মহামারী আঘাত হেনেছে। এই করোনা ভাইরাসের প্রলয়ংকরী থাবা থেকে কেউই রেহাই পাচ্ছে না। হাইড্রোজেন বোমা,পারমানবিক আধুনিক অস্ত্রশস্ত্র সবকিছুই ছাপিয়ে যেন করোনা হয়েছে অনেক বেশি আগ্রাসী। তাকে এখন পর্যন্ত কোন রাষ্ট্রই পুরোপুরি নির্মূল করতে পারে নি। কোন প্রতিষেধক এখনো বের হয় নি। কোন টীকা আবিস্কার হয় নি।

আসুন, সবাই নিজেকে সুরক্ষিত রাখি,নিজের পরিবারকে সুরক্ষা দেয়। কোনভাবেই অতীব প্রয়োজন ব্যতীত বাইরে বের না হয়। মহান সৃষ্টিকর্তার কাছে ক্ষমা চাই, তার কাছেই সাহায্য প্রার্থনা করি। এই মহা বিপদ থেকে পুরো বিশ্বকে তিনি যেন রক্ষা করেন। লাশের মিছিল যেন আর দীর্ঘ না হয়। সবাই যার যার অবস্থান থেকে পাড়া প্রতিবেশীদের সাহায্যে এগিয়ে আসি। আসুন, আমরা মানবিক হয়, সবার পাশে সবাই দাড়াঁয়। করোনা আক্রান্ত দের প্রতি আরও বেশী উদার ও সহানুভূতিশীল হয়। পুলিশ, ডাক্তার,নার্স,স্বাস্থ্য কর্মী, প্রশাসন, গণ মাধ্যম কর্মী সবাইকে সঠিক তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করি। একটি সুন্দর, সুস্থ পৃথিবীর প্রত্যাশা করি। খুব দ্রুতই যেন বিশ্ব আবার তার স্বাভাবিক গতি ফিরিয়ে পায়। মানুষ যেন করোনা উত্তর বিশ্বে আরও বেশী মানবিক হয়,মূল্যবোধ সম্পূর্ণ হয়, ন্যায়নীতি বান হয়। অন্যায় অসত্য যেন দূরীভূত হয়।

লেখকঃ কলামিস্ট,সাংস্কৃতিক কর্মী এবং সংগঠক।