রামগড়ের পাতাছড়ায় শ্বশুরবাড়িতে জামাই খুন

বাহার উদ্দিন বাহার উদ্দিন

রামগড় প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৮:০৩ অপরাহ্ণ , জুলাই ২৫, ২০২১

খাগড়াছড়ির রামগড়ের পাতাছড়ার প্রত্যন্ত পাহাড়ি পল্লী দক্ষিণ নতুন
পাড়ায় বিয়ের মাত্র ৫দিন পর নববধূকে নিতে এসে শ্বশুরবাড়িতে খুন হন জামাই চাইথোয়াই অং মারমা(৩৬)।

শ্বশুরবাড়ি থেকে পুলিশ রবিবার(২৫
জুলাই) বিকাল ৪টার দিকে নিহত চাইথোয়াই অং মারমার মরদেহ উদ্ধার করেছে। হত্যাকান্ডের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নববধূ চপাইয়ে মারমা ও শ্যালক উখ্যাচিং মারমাকে আটক করা হয়েছে।

পুলিশ ও স্থানীয় গ্রামবাসি সূত্রে জানাগেছে, রামগড় সদর
ইউনিয়নের লালছড়ি গ্রামের ব্রজেন্দ্র মারমার ছেলে চাইথোয়াই অং
মারমা গত ২০ জুলাই বিয়ে করেন উপজেলার পাতাছড়া ইউনিয়নের প্রত্যন্ত পাহাড়ি গ্রাম দক্ষিণ নতুন পাড়ার মৃত পেঞ্চচিও মারমার মেয়ে চপাইয়ে মারমাকে। এটা দুজনেরই দ্বিতীয় বিয়ে। বিয়ের পর নববধূ স্বামীর বাড়িতে ২-৩দিন থেকে বাপের বাড়ি বেড়াতে আসে। শনিবার(২৪ জুলাই) রাতে স্বামি চাইথোয়াই স্ত্রীকে নিয়ে য়েতে শ্বশুরবাড়ি আসেন।

রাতে খাওয়া দাওয়া শেষে শ্বশুরবড়ির একটি কক্ষে ঘুমিয়ে পড়েন স্বামি স্ত্রী দুজন। গভীর রাতে কে বা কারা ঘরে ডুকে ঘুমন্ত অবস্থায় চাইথোয়াইকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলা কেটে হত্যা
করে। সকালে স্ত্রী চপাইয়ে মারমা হত্যার খবরটি নিহত স্বামীর
পরিবারকে মোবাইল ফোনে জানায়। পরে স্বজনরা থানায় খবর দিলে পুলিশ রবিবার বিালে ঘটনাস্থল হতে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে। একই বিছানায় ঘুমালেও স্বামিকে কে বা কারা গলা কেটে হত্যা করলো তার কোন কিছুই জানতে পারেনি বলে জানান স্ত্রী চপাইয়ে মারমা। রামগড় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মেহাম্মদ সামছুজ্জামান বলেন, নিহত
চাইথোয়াই অং মারমার প্রথম স্ত্রী অন্যজনের সাথে পালিয়ে যাওয়ার পর গত ২০ জুলাই চপাইয়ে মারমাকে বিয়ে করে। চপাইয়ে মারমারও আগে
বিয়ে হয়েছিল। সে সংসারে দুবছরের একটি মেয়েও আছে। গত প্রায়
৬ মাস আগে প্রথম স্বামি পাইচা থোয়াই মারমার সথে তার বিবাহ
বিচ্ছেদ হয়। তিনি আরো জানান, দ্বিতীয় বিয়ে বসার ২-৩দিন পর প্রথম স্বামী ফোন করে তার ঘরে আবার ফিরে যেতে প্রস্তাব দেয় চপাইয়ে মারমাকে। ওসি সামছুজ্জামান বলেন, প্রাথমিক তদন্তে এ হত্যার ঘটনার সাথে চপাইয়ে মারমার প্রথম স্বামী পাইচা থোয়াই মারমার জড়িত থাকার বিষয় সন্দেহ করা হচ্ছে। তিনি বলেন, পাহাড়ের আঞ্চলিক কোন সংগঠনের সন্ত্রাসীদের দিয়ে হত্যাকান্ড ঘটনানো হতে পারে। এ
কারণেই হয়তো ঐ সন্ত্রাসিদের ভযে নিহতের স্ত্রী বা শ্বশুরবাড়ির কেউ মুখ খুলছে না। তিনি জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য স্ত্রী চপাইয়ে মারমা ও শ্যালক উখ্যাচিং মারমাকে আটক করে থানায় রাখা হয়েছে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য খাগড়াছড়ি জেলা হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর
হয়েছে। মামলা রুজু প্রক্রিয়াধীন আছে।