পাহাড়ে মানবিকতা!

প্রকাশিত: ৬:১২ অপরাহ্ণ , মার্চ ১, ২০২১

সালেহ ইমরান::

বেতবুনিয়ার পাহাড়ি রাস্তা বেয়ে হাটতে হাটতে চোখে পড়ল ছোট্ট এই খুপরির৷ তাতে দুটি মাটির কলসের উপরে ঢাকনা সহ দুটি মগ রাখা।
কৌতূহল জাগলো জনমানবহীন এমন জায়গায় এরকম করে রাখার কারন কি। এই এলাকারই একজন সহকর্মী জানালেন পাহাড়ি রাস্তা বেয়ে হাটতে হাটতে যখন কারো তৃষ্ণা পায় সেজন্যই মাটির কলসে বিশুদ্ধ পানি রেখে এমনটা করে রাখা হয়েছে৷
অবশ্য ছবিতে না আসলেও খুপড়িটির পাশেই গাছের ছায়ায় বাশ দিয়ে আরো একটি মাচা বানিয়ে রাখা আছে। যে কেউ চাইলে সেখানে খুব আয়েশ করে জিড়িয়ে নিতে পারবেন।
আমার সেই সহকর্মীর কাছ থেকেই শুনলাম আজ থেকে ১০-১৫ বছর আগেও এই এলাকায় চলাচলের কোন রাস্তা ছিলনা। এখন অবশ্য পাহাড় কেটে সুন্দর পাকা রাস্তা করা হয়েছে৷ আমাদের মত অনেক সমতল এলাকাতেও এতো সুন্দর রাস্তা খুব কমই আছে।
১০-১৫ বছর আগে যখন এই এলাকার মানুষ এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় পাহাড় বেয়ে পায়ে হেটে চলাচল করত,
এসময় হাটতে হাটতে কারো ক্ষুধা পেলে আশেপাশে বাড়িতে গিয়ে ভাত চেয়ে খেয়ে নিত। ভাত না থাকলেও রান্না করে দিত।
দুর্গম পাহাড়ি জনপদের মানুষের এমন আন্তরিকতা এবং মানবকিতা হৃদয়ে ধারণ করার মতো।
বলে রাখা ভালো, পাহাড়ের এই শান্তিপূর্ণ মানুষের ভিতরেও কিছু মানুষ এখানে অস্থিতিশীল পরিবেশ তৈরি করতে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে৷