ভোলার তৃণমূলে মুক্তবুলি ও উপকূল সাহিত্য সংসদের লেখক আড্ডা

প্রকাশিত: ৪:১৭ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ১৫, ২০২১
Exif_JPEG_420

ভোলার বোরহানউদ্দিন কাচিয়া ইউনিয়নে কবি, লেখক ফিরোজ মাহমুদের নিজস্ব পাঠাগারে ১৪ জানুয়ারি, বৃহস্পতিবার বিকেলে বসেছিল এক লেখক আড্ডা।তৃণমূলে এ লেখক আড্ডার আযোজন করে মুক্তবুলি ও উপকূল সাহিত্য সংসদ, ভোলা।

জনপ্রিয় কবি নীহার মোশারফের স্বরচিত কবিতা তাঁর কন্ঠে আবৃত্তির মধ্যদিয়েই সূচনা হয় আড্ডা।

জমজমাট এ আড্ডায় অংশ নেন,নয়াদিগন্ত’র বরিশাল ব্যুরোচিফ, মুক্তবুলি সাহিত্য সাময়িকীর সম্পাদক আযাদ আলাউদ্দিন,লেখক ও সাংবাদিক সাব্বির আলম বাবু, কবি এরশাদ সোহেল,ছড়াকার আরিফুল ইসলাম,গাজী মো. তাহেরুল আলম।সাহিত্যের নানামুখি প্রাণোবন্ত আলোলোচনায় আড্ডা চলেছিল সন্ধ্যা পর্যন্ত।

এরমধ্যে সবাই মাগরিব নামায আদায় করেন কবি ফিরোজ মাহমুদের ইমামতিতে।

এতে শুধু সাহিত্য নয়, শিল্প-সংস্কৃতির নানা দিকও আলোচনায় উঠে আসে। কবি ও লেখকদের আলাপচারিতায়।আলোচনায় কবি আল মাহমুদ,জীবনান্দ,শামসুর রহমান, আল হাফিজ, নয়ন আহমেদ সহ দেশের প্রখ্যাত কবি লেখকদের জীবনকর্ম নিয়েও কথা হয়।খ্যাতিমান প্রচ্ছদ শিল্পী ধ্রুব এষ’র অংকিত তাৎপর্যপূর্ণ ও নানন্দনিক প্রচ্ছদ নিয়েও কথা হয় আড্ডায়।

সাহিত্য আড্ডার মাঝামাঝি কবি ফিরোজ মাহমুদের পারিবারিক আতিথিয়েতায় সবাই মুগ্ধ হয়ে যান।ঘরোয়া রসবড়া,নুডলস্, ছানার মিষ্টি, ডালিম, আপেল, কমলা পরিবেশন করা হয় সাহিত্য আড্ডায়।ফিরোজ ভাইয়ের সেই উক্তি, “চায়ের ফোটায়, ফোটায় রক্ত”… সেই সুস্বাদু চা দেয়া হলো আড্ডার শেষ প্রান্তে।

এরপর শুরু হয় আড্ডাবাজদের নিজস্ব বই আদান-প্রদান।পুরো আড্ডাজুড়ে কবি ফিরোজ মাহমুদের মায়াবী সন্তান ফজলে রাব্বি সাহিত্য আড্ডার আদ্যোপান্ত ছবি তুলে সবার নিবিড় ভালোবাসায় উচ্ছ্বসিত হয়ে ওঠে।আজকের এ সাহিত্য আড্ডায় দাওয়াতি কয়েকজন কবি ও লেখক নিজস্ব ব্যস্ততায় উপস্থিত থাকতে পারেন নি।

মুক্তবুলি সম্পাদক আযাদ আলাউদ্দিন বলেন, সাহিত্যের প্রতি ভালোবাসা না থাকলে সাহিত্য চর্চা কা যায়না।

দু’বাংলার কবি নীহার মোশারফ বলেন, একজন লেখকের জন্য লেখক সম্মানি অনেক বড় প্রাপ্তি।আজকাল অনেক পত্র-পত্রিকা লেখকদের ঠকান।

লেখক সাব্বির বাবু বলেন, লেখালেখির মাঝেই জীবনের আনন্দ খুঁজে পাই।কবি এরশাদ সোহেল ও আরিফুল ইসলাম সাহিত্যে কবিতার গুরুত্ব আড্ডায় তুলে ধরেন।কবি ফিরোজ মাহমুদ বলেন- শিশু, কিশোর ও তরুণদের সাহিত্যের প্রতি আকর্ষণ বাড়াতে হবে।

আড্ডার শেষদিকে উপকূল সাহিত্য সংসদ, ভোলা’র পক্ষ হতে গাজী মো. তাহেরুল আলম উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।তিনি বলেন,মুক্তবুলি ও সাহিত্য সংসদের উদ্যোগে প্রতিমাসে একটি সাহিত্য আড্ডার আয়োজন করা হবে।