শীত আর কুয়াশায় ক্ষতি হচ্ছে বীজতলাসহ ফসলের

প্রকাশিত: ৪:২১ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ৩, ২০২১

রংপুর বিভাগসহ বেশ কয়েকটি জেলায় বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। দিনে রোদ আর সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা থাকে চারদিক। কনকনে শীত আর কুয়াশায় বোরো বীজতলাসহ ক্ষতি হচ্ছে বিভিন্ন ফসলের। 

রংপুর বিভাগসহ নওগাঁ, পাবনা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা এবং মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ অব্যাহত রয়েছে।

উত্তরের জেলা ঠাকুরগাঁওয়ে প্রায় একমাস ধরে দুপুরে রোদ থাকলেও সন্ধ্যা থেকে সকাল পর্যন্ত বৃষ্টির মতো ঝরে ঘন কুয়াশা। এতে বোরো বীজতলা কোল্ড ইনজুরিতে আক্রান্ত হয়ে হলুদ হয়ে মরে যাচ্ছে। সেচ ও কীটনাশক প্রয়োগ করেও ফল পাচ্ছেন না বলে জানান চাষীরা।

চাষীরা বলেন, বীজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। এ জন্য পলিথিন ঢাকা দিয়ে রাখা হলেও রক্ষা করা যাচ্ছে না বীজতলা।

কয়েক দিনের ঘন কুয়াশা আর ঠাণ্ডার প্রভাব পড়েছে গাইবান্ধার পোল্ট্রি খামারগুলোতে। রোগে আক্রান্ত হচ্ছে মুরগি, ছোট হচ্ছে ডিমের আকার। এতে আয় কমেছে খামারীদের।

খামারীরা জানান, শীতের জন্য মুরগী খুব একটা বাড়ছে না। এদের খাবারের পরিমাণও গেছে কমে। এর ফলে ডিম হচ্ছে ছোট।

নওগাঁতেও বইছে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ। দিনে সূর্যের দেখা মিললেও বিকেল থেকে হিমেল হাওয়ায় বাড়ে শীতের দাপট। ঘন কুয়াশায় ক্ষতি হচ্ছে বোরো ধানের বীজতলা। কৃষকরা জানান, কোল্ড ইনজুরির কারণে হলুদ হয়ে মরে গেছে বোরো ধানের চারা।

কৃষকরা জানান, কুয়াশার কারণে বীজতলা মরে যাচ্ছে। এর কারণে আমি ৮ বিঘা জমিতে ফসল লাগাতে পারবো না।

চুয়াডাঙ্গায় টানা দুই সপ্তাহ ধরে কুয়াশার সঙ্গে বইছে শৈত্যপ্রবাহ। বোরো ধানের বীজতলা কোল্ড ইনজুরিতে আক্রান্ত হওয়ায় দুশ্চিন্তায় কৃষক।

এদিকে, ঢাকার কেরানীগঞ্জে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া উপহার হিসেবে অসহায় ও দুস্থ শীতার্তদের মাঝে ৬ হাজার কম্বল বিতরণ করা হয়েছে।

নাটোরের সিংড়ায় শীতার্ত অসহায় মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। মানিকগঞ্জে অস্বচ্ছল ও প্রতিবন্ধীদের মাঝে কম্বল ও সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে।