যেভাবে বার্থডে গিফট পাঠাতে পারেন আমাকে!

প্রকাশিত: ৮:৩৭ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ৩১, ২০২০
যারা কষ্ট করে আমাকে বার্থডে উইশ করেছেন এবং যারা নানা ব্যস্ততার কারণে সেটা করতে পারেননি, সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা রইলো। যেহেতু বার্থডে পার্টি টাইপের কিছু কখনো করা হয় না, তাই এ উপলক্ষে কোন গিফট গ্রহণ না করার নীতিও আমি কঠোরভাবেই মেন্টেইন করি।
শুনতে যতটা সহজ মনে হচ্ছে, বাস্তবে এই মেন্টেইন অত সোজাও না। অনেকে ভুল বুঝেন, মনে করেন আমি হয়তো খুব অহংকারী। আমার মনে আছে, যখন বিসিএস (শিক্ষা) ক্যাডারে খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের লেকচারার হিসেবে কর্মরত ছিলাম, এরকম কয়েকবার হয়েছে যে, ছাত্রছাত্রীরা এই দিনটিতে ক্লাসে আসার সময় অনেকে মিলে কিছু একটা গিফট নিয়ে এসেছে। আমি সেটা রিসিভ না করে অনেক বুঝিয়েশুনিয়ে তাদেরকে ফেরত দিয়েছি। ফেরত তারা নিয়েছিলো বটে, কিন্তু একেকজনের কি যে উথাল-পাতাল কান্না!! তাদেরকে চোখের পানি মুছতে দেখে আমার বুক ভেঙে গিয়েছিলো।
যা হোক, সেই নীতি এখনো বহাল আছে। তারপরও যদি কেউ গিফট দেওয়ার ব্যাপারে নাছোড়বান্দা হয়ে থাকেন, তার কাছ থেকে একটা জিনিস উপহার আমি নিতে চাই। একটি ‘বাংলাদেশ কুটির’। শ্রীমঙ্গলের আব্দুল কাদির’র কথা মনে আছে আপনাদের? আমার দায়িত্বাধীন শ্রীমঙ্গল র্যাব ক্যাম্পের সদস্য এবং স্থানীয় জনতার যূথবদ্ধ প্রচেষ্টার ফসল হিসেবে যার বিধ্বস্ত ঘরের ভিটেয় সগৌরবে মাথা তুলেছিল ‘বাংলাদেশ কুটির’র প্রথম ঘরটি। একইভাবে আপনার এলাকার গরিব/গৃহহীন/বসবাস অনুপযোগী জীর্ণ ঘরে বসবাসকারী কোন পরিবারের জন্য একটি মাথা গোঁজার ঠাঁই যদি আপনি তৈরি করে দেন, সেটাই হবে আমার জন্য আপনার দেওয়া সবচেয়ে বড় বার্থডে গিফট।
প্রমিজ করছি, যদি কেউ তার নিজ এলাকায় ‘বাংলাদেশ কুটির’ করে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ান, আমাকে জানালে আমি যেভাবে পারি, সেটা দেখার জন্য ওই এলাকায় যাব। শুধু তাই নয়, তার জন্য উল্টো আমার তরফ থেকে থাকবে স্পেশাল একটি গিফট। একা করার সাধ্য না থাকলে ১০/১২ জন মিলেও উদ্যোগ নিতে পারেন একটি বাংলাদেশ কুটির’র। উপরে টিনের চাল, পাশে টিন না বাশের বেড়া, যেটা সহজ হয়। ফ্লোর আপাতত কাচাও রাখতে পারেন। খুব সিম্পল। একটি কুটিরের জন্য সবমিলিয়ে খরচ করতে পারেন ১৫/২০ হাজার টাকা। আর উদ্যোগটি হতে হবে অবশ্যই আপনার নিজ এলাকায়।
ছবিতে: বার্থডে উপলক্ষে আজ দুপুরে সুবিধাবঞ্চিত শিশু এবং সহায়সম্বলহীন বৃদ্ধ নারীদের জন্য আমার সামান্য আয়োজন।
Md. Anwar Hossan (Shamim Anwar)
এএসপি, (রাঙ্গুনিয়া-রাউজান সার্কেল)
চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ।