কবি রুমানা পারভীন রনি’র দু’টি কবিতা

প্রকাশিত: ৮:৫৮ অপরাহ্ণ , জুলাই ৩০, ২০২০

১.অপরাজিতা

অপরাজিতা,
তুমি যখন নীল বেশ ধারণ কর
তোমাকে তখন ঠিক একটা
নীল অপরাজিতার মতোই লাগে।
ভীষণ মোহনীয় কিন্তু বুকে ধরে রাখো নীল গরল।
তুমি আমাকে কখনো বলোনি
তবুও আমি তোমার সব অতীত জানি,
তারপর থেকে একটু একটু করে তোমাকে আবিষ্কার করি তোমারই অজান্তে।
কি যে কষ্ট তুমি বুকে লুকিয়ে রেখেছো
কেউ তা ভাবতেও পারবে না।
হঠাৎই একদিন মনে হলো
তুমি ঠিক একটা অপরাজিতা,
দেখতে কি মোহনীয় অথচ বুকে জমে আছে তীব্র বেদনা
তোমার রুপ,গুন, হাসিতে সবাই মাতোয়ারা
আর আমি এসব কিছুর পেছনে দেখি
তোমার দুঃখী মুখ লুকানোর প্রচেষ্টা।
অপরাজিতা
আমি কোনদিন বলতে পারবো না
আমি তোমাকে ভালোবাসি,
তোমার কষ্টের ভাগ আমি নিতে চাই।
যদি ফিরিয়ে দাও,এরপর যদি তোমাকে হারিয়ে ফেলি!
ভীষণ ভয় হয় জানো।
তুমি আমার রন্ধ্রে রন্ধ্রে মিশে আছো।
অপরাজিতা আমি তোমাকে ভালোবাসি,
আমাকে দেবে কি তোমার পাশে হাঁটতে।
আমিও তোমার কষ্টের ভাগ নিয়ে
আরেকটা নীল অপরাজিতা হতে চাই যে…

২.অনিন্দিতা

অনিন্দিতা,তুমি কি জানো,
ভালোবাসা শব্দটা মনে হয় তোমার জন্যই সৃষ্টি হয়েছে?
কতটা ভালোবাসলে তোমাতে বুঁদ হয়ে থাকা যায়
সেটা তুমি আমার মতো করে ভালো না বাসলে
কোনদিনই বুঝতে পারবে না।
তুমি তো কখনোই জানলে না
আমার পৃথিবীতে শুধু তোমাকেই দেখি,
স্বপ্নের আবাস তোমাকে ঘিরেই।
তবুও তোমার চোখে আমার ছায়া দেখি না।
মেঘেরা পালক ফেলে যায় তোমার ছবি এঁকে,
ঝর্ণার গানে তোমার সুর শুনি
নুপুরের নিক্কণ ধ্বনিত হয় তোমার চলায়
বাঁকা চাঁদ খোঁপায় বসে কাঁটা হয়
আর আমি মগ্ন হয়ে তোমাকে দেখি।
মনে হয় পাশেই আছো,
ছুঁয়ে ছুঁয়ে আছো জোনাকির মতো।
কাঁচপোকা টিপে মোহনীয় দেবী হও আমার মন্দিরে।
আমার এতটা ভালোবাসা কি
কখনোই তোমাকে স্পর্শ করে না?
ভালোবাসবেনা কোনদিনই?
আমি যে ভীষণ অপেক্ষায় তোমার,
অনিন্দিতা,
আসবে কি আমার অপেক্ষাকে ছুটি দিতে…