ফেইসবুক পেইজে চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে ডিজিটাল প্রতারণা।

এস.এম.এ জুয়েল এস.এম.এ জুয়েল

স্টাফ রিপোর্টার

প্রকাশিত: ৭:০৮ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ২৪, ২০২২

 চট্রগ্রামের পটিয়ায় হামীম কম্পিউটারে কর্মরত বোয়ালখালী উপজেলার পশ্চিম শাকপূরা গ্রামের রামকৃষ্ণ চৌধুরী (২৮) প্রতারণার স্বীকার হয়েছে।
ফেইজবুক পেইজ Electric Bike Shop Tuha ধামাকা অফার এর বিজ্ঞাপন দেখে বিকাশ নম্বর
০১৮৩৫ ৮৭৮০৩৮ ইলেকট্রনিক মোটর বাইক ক্রয় করতে বিকাশে ৫০০০ টাকা অগ্রিম প্রেরন করেন।
পররর্তীতে বাকি টাকা দিয়ে মোটর বাইক ডেলিভারি দেওয়ার কথা ছিল ৪৮ ঘন্টার মধ্যে। কিন্তু চার পাচঁ দিন পার হয়ে গেলে ও কোন খবর নেই এ কোম্পানীর। পরে টাকা পাঠানো নাম্বারে যোগাযোগ করা হলে নয় ছয় করতে থাকেন তারা। এমনকি আরো টাকা পাঠাতে বলে। পরবর্তীতে কল রিসিভ করাই বন্ধ করে দেয় প্রতারকচক্র।
এ ধরনের প্রতারণার স্বীকার ভূক্তভোগীরা বলেন এই ধরনের ছোট প্রতারনার ক্ষেএে মানুষ আইনের আশ্রয় কম নেয় বিধায় প্রতারকরা বেশী সুযোগ নিচ্ছে । এসব প্রতারণা কে কেন্দ্র করে অনেক ভাল উদ্যোক্তাকে ও মানুষ বিশ্বাস করছে না।
ভাল পন্যের ক্ষেএে ও মানুষ সন্দেহ পোষণ করে। টাকার পরিমান দেখতে কম হলেও এই প্রতারক সিন্ডিকেট পূরো দেশে প্রতারণার জাল বিস্তার করে লক্ষ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয় ডিজিটাল প্রতারণার মাধ্যমে।

ভুক্তভোগী রামকৃষ্ণ বলেন আমি মানুষকে সচেতন হতে বলি কিন্তু আমি ওদের ফাদেঁ পা দিয়ে বসে আছি। কোথায় অভিযোগ দিব বুঝতে পারছিনা। উল্লেখিত এই পেইজ দেখে বুঝা য়ায় ওরা অনেক বড় সিন্ডিকেট। অনেক কমেন্ট শেয়ার রয়েছে। বিজ্ঞাপন দেখে বুঝার উপায় নেই ওরা মানুষের সাথে প্রতারণা করছে।
এ ব্যাপারে ক্যাব পটিয়া উপজেলা আহবায়ক

সাংবাদিক আবদুল হাকিম রানা  বলেন লোভনীয় অফারের ফাদেঁ ফেলে বাংলাদেশে অনেক এম এল এম কোম্পানী হাজার হাজার পরিবার ও মানুষকে পথে বসিয়েছে। এর থেকে সকলকে সচেতন থাকতে হবে। কেউ বললেই টাকা পাঠানো যাবে না। কোম্পানী গুলো সম্পর্কে খবরা খবর নিতে হবে।