অপরিকল্পিত স্থাপনা তৈরি না করার আহ্বান

প্রকাশিত: ২:০৮ অপরাহ্ণ , মে ১৮, ২০২২

কক্সবাজারে অপরিকল্পিতভাবে কোনো স্থাপনা নির্মাণ না করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ভবিষ্যতে কক্সবাজারই হবে আন্তর্জাতিক বিমান চলাচলের রুটের রি-ফুয়েলিং পয়েন্ট। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যটকদের জন্য কক্সবাজারকে মহাপরিকল্পনার আলোকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে।

বুধবার (১৭ মে) সকালে কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নবনির্মিত ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

শেখ হাসিনা বলেন, সমুদ্রসীমায় অধিকার প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছে। এখন সমুদ্র সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহারের জন্য সুনীল অর্থনীতি নিয়ে কাজ চলছে।

সরকারপ্রধান বলেন, বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা ও পাহাড় মিলিয়ে একটি ভূখণ্ড আমরা পেয়েছি। এর প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষা করা প্রয়োজন। এই সম্পদ রক্ষা করতে হবে। পর্যটকদের জন্য ব্যবস্থা থাকবে। কিন্তু প্রাকৃতিক পরিবেশ যেন নষ্ট না হয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, পর্যটন নগরীকে আকর্ষণীয় করতে অনেক ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়। বিশেষ ধরনের আধুনিক ব্যবস্থাগুলোও আমরা ধীরে ধীরে নেব। সেটিই আমরা চাচ্ছি। বাংলাদেশ এগিয়েছে। আমরা চাই, বাংলাদেশ এগিয়ে যাক। বিশ্বের বুকে সবচেয়ে উন্নত, সমৃদ্ধ ও সুন্দর দেশ হিসেবে বাংলাদেশ গড়ে উঠুক।

কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (কউক) চেয়ারম্যান লে. কর্নেল (অব.) ফোরকান আহমেদ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

২০১৭ সালের ২৭ মার্চ অনুষ্ঠিত গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের ভূমি বরাদ্দ কমিটির সভায় কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবন নির্মাণের জন্য এক একর ২১ শতক জমি বরাদ্দ দেওয়া হয়। একই বছরের ৬ মে প্রধানমন্ত্রী কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের বহুতল অফিস ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে ১০ তলা ভবনটির নকশা প্রণয়ন করে স্থাপত্য অধিদফতর। কক্সবাজার উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ ও গণপূর্ত অধিদফতর যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করে।