‘বঙ্গমাতা সংকটে সংগ্রামে নির্ভীক সহযাত্রী’

প্রকাশিত: ৯:৫৮ পূর্বাহ্ণ , আগস্ট ৮, ২০২১

বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকী আজ রোববার। বেঁচে থাকলে এদিন তার বয়স হত ৯১ বছর। এ বছরই প্রথম সরকারিভাবে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকী উদযাপিত হচ্ছে জাতীয় দিবস হিসাবে। এ দিবসের প্রতিপাদ্য: ‘বঙ্গমাতা সংকটে সংগ্রামে নির্ভীক সহযাত্রী’।

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন। দিবসটিকে সরকারি কর্মসূচি ছাড়াও আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন নানা আয়োজন করেছে। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতারসহ অন্যান্য ইলেকট্রনিক মিডিয়া বিশেষ অনুষ্ঠান প্রচার করবে।

দিনটি উপলক্ষে নানা আয়োজনের পাশাপাশি বিভিন্ন ক্ষেত্রে ‘গুরুত্বপূর্ণ অবদান ও গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার’ জন্য পাঁচজন বাংলাদেশি নারীকে এদিন দেওয়া হবে ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব’ পদক।

বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে রোববার সকাল ৯টায় বনানী কবরস্থানে শ্রদ্ধা নিবেদন করবে আওয়ামী লীগ। এছাড়া কোরানখানি, মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন থাকছে।

দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে যথাযথ মর্যাদায় দিনটি পালন করার জন্য আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের সকল স্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থক, শুভানুধ্যায়ীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এবারই প্রথম বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে জাতীয় দিবস হিসেবে উদযাপন করা হচ্ছে।

কেন্দ্রীয় আয়োজনের অংশ হিসেবে রোববার সকালে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ‘বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব পদক’ বিতরণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন।

সারা দেশে বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের পাশাপাশি বিদেশি মিশন ও দূতাবাসেও দিবসটি উদযাপন করা হবে বলে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে জানানো হয়েছে।