পুরনো স্মৃতি মনে করতেই হাউমাউ করে কাঁদেন ভিপি শাহজাহান

প্রকাশিত: ৯:১৫ পূর্বাহ্ণ , মে ৩০, ২০২১
প্রিন্সিপাল মুকতাদের আজাদ খান
.
ডাকসু- তে সন্দ্বীপ উপজেলার দু’জন প্রগতিশীল ছাত্রনেতা প্রতিনিধিত্ব করেন। একজন এ.জি.এস অন্যজন আপ্যায়ন সম্পাদক। এ.জি.এস ছিলেন নাসির উদ দূজা। আপ্যায়ন সম্পাদক ছিলেন নূরুল আকতার। তাঁদের দু’জনের সাথে আমার স্মৃতি থাকলেও সন্দ্বীপ সরকারি হাজী এ বি কলেজ ছাত্র সংসদে নির্বাচিত একমাত্র ভিপি মোঃ শাহজাহানের সাথে আমার স্মৃতি ছিল না।
মোঃ ফজলুল করিম। প্রধান শিক্ষক এবং অধ্যক্ষ (চলতি দায়িত্ব) পাহাড়তলী গার্লস স্কুল এন্ড কলেজ, চট্টগ্রাম। আলাপকালে বলছিলাম চলেন একদিন ভিপি শাহজাহানের বাসায় যাই। ঝটপট সম্মতি। তারই আলোকে ২৩ আগষ্ট ২০১৯, শুক্রবার সকাল ১০টায় আমরা ভিপি শাহজাহানের মুখোমুখি।
ভিপি শাহজাহান (৬৯)। সনদে তাঁর নাম মোহাম্মদ শাহজাহান। তিনি ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দে অনুষ্ঠিত সন্দ্বীপ সরকারি হাজী এ বি কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ভিপি নির্বাচিত হন। অদ্যাবধি আর কোন নির্বাচন না হওয়ায় তিনিই সন্দ্বীপ সরকারি হাজী এ বি কলেজ ছাত্র সংসদে একমাত্র নির্বাচিত ভিপি।
মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি বিএলএফ ছিলেন। ১৯৯১ খ্রিস্টাব্দের বন্যায় বিএলএফ সনদ হারিয়ে ফেলেন।
আলোচনায় উঠে আসে তাঁর বাল্য বন্ধু মুক্তিযুদ্ধকালীন সন্দ্বীপ থানা কমান্ডার মোঃ রফিকুল ইসলাম চেয়ারম্যান ও মোঃ মাহাবুবুল আলম চেয়ারম্যানের নাম।
জাসদ নেতা মোঃ আবুল কাসেমের ইন্তেকালের সংবাদ জেনে হাউমাউ করে কাঁদছিলেন তিনি। আলাপচারিতায় পুরনো স্মৃতি যতবারই উঠে এসেছে ততবারই তিনি কেঁদেছেন। পড়াশোনা শেষে প্রথমে ঠিকাদারি পরে ঔষধ ব্যবসায় মনযোগী হলেও ব্যবসা তিনি জমাতে পারেননি।
১৯৯৯ খ্রিস্টাব্দের ১৮ ডিসেম্বর প্রথমবার এবং ২০১৭ খ্রিস্টাব্দের ১৫ আগষ্ট দ্বিতীয়বার ষ্ট্রোক করেন। দু’বার ষ্ট্রোক করার কারনে বাধ্য হয়ে অবসর আছেন তিনি। ১৯৯৯-তে ষ্ট্রোক করার পর থেকে প্যারালাইজড তাঁর নিত্য সঙ্গী।
২০০৫ খ্রিস্টাব্দে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়ে সপরিবারে সন্দ্বীপ ছাড়েন ভিপি শাহজাহান। তিনি ১৯৬৯ খ্রিস্টাব্দে সন্দ্বীপ মডেল হাই স্কুল থেকে এসএসসি এবং ১৯৭২ খ্রিস্টাব্দে সন্দ্বীপ সরকারি হাজী এ বি কলেজ থেকে আইএ পাশ করেন।
ভিপি শাহজাহান হরিশপুর ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড মৌলভী আবদুস সালামের বাড়িতে ১৯৫২ সালের ১৮ আগষ্ট জন্মগ্রহন করেন। তাঁর পিতা-মাতা-স্ত্রী মুন্সী আবুল কাসেম, সখিনা খাতুন ও আফতাব আরা খানম।
ব্যাক্তিগত জীবনে তিনি ১ কন্যা ও ১ পুত্র সন্তানের পিতা। কন্যা মেহের আফরোজ চট্টগ্রাম সরকারি সিটি কলেজ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে মাস্টার্স এবং পুত্র শাহ মোহাম্মদ তানভীর হোসেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যবস্থাপনায় এমবিএ ডিগ্রী সম্পন্ন করেছেন।
চট্টগ্রাম পাহাড়তলী আকবর শাহ থানাধীন রেলওয়ে হাউজিং সেসাইটির ১ নং সড়কের ৬৯ নং বাড়ির ইউনিট ৬/ই ফ্ল্যাটে বসবাস করেন ভিপি শাহজাহান।
প্লিজ, লেখাটি চুরি করা থেকে বিরত থাকুন।
.
লেখক-
প্রিন্সিপাল,তাহের-মনজুর কলেজ,সীতাকুণ্ড,চট্টগ্রাম।