আশুলিয়ায় শ্রমিকদের বেতন আত্মসাৎ

প্রকাশিত: ৮:৩০ অপরাহ্ণ , মে ৫, ২০২১

আশুলিয়ায় আর.এস অ্যাপারেলস নামে একটি পোশাক কারখানার শ্রমিকদের বেতন আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে দুই শ্রমিক নেতার বিরুদ্ধে।

জানা যায়, একমাস ধরে বন্ধ থাকা ওই কারখানার শ্রমিকরা কয়েকদিন আন্দোলন করার পর কারখানা থেকে পাওয়া ৩ লাখ টাকা শ্রমিকদের মধ্যে দেওয়ার কথা থাকলেও শ্রমিক নেতারা মাত্র ১ লাখ ৯ হাজার টাকা দিয়েছেন। পরে নেতাদের বিরুদ্ধে শিল্প পুলিশ-১ এ প্রায় ২ লাখ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ করেছেন শ্রমিকরা।

বুধবার (০৫ মে) সকালে শ্রমিকদের অভিযোগের বিষয়টি নিশ্চিত করেন শিল্প পুলিশ-১ এর পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান। এরআগে, গত ২৮ এপ্রিল শিল্প পুলিশ-১ পুলিশ সুপার বরাবর একটি অভিযোগ করে ভুক্তভোগী শ্রমিকরা।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, আর.এস অ্যাপারেলস চিত্রাশাইল আশুলিয়ায় অবস্থিত গার্মেন্টস কারখানা বকেয়া বেতন না দিয়ে ৬ এপ্রিল কারখানা বন্ধ করে দেয়। পরে শ্রমিক সংগঠনের সহযােগিতা চাইলে শিল্প পুলিশের কার্যালয়ে লিখিত আবেদন করে শ্রমিকরা।

তারই পরিপ্রেক্ষিতে ৫ মে শিল্প পুলিশ ও শ্রমিক সংগঠনের সহযােগিতায় বাংলাদেশ রেডিমেট গার্মেন্টস ও ওয়ার্কাস ফেডারেশনের সভাপতি জাহিদুর রহমান জীবন তার অফিসে বেতন দেওয়ার কথা বলে শ্রমিকদের আসতে বলে। কারখানা কর্তৃপক্ষ থেকে নিয়ে শিল্প পুলিশ শ্রমিক নেতাদের কাছে ৩ লাখ টাকা বুঝিয়ে দেন। এর মধ্যে শ্রমিকদের মধ্যে ১ লাখ ৯ হাজার টাকা বন্টন করে বাকি ১ লাখ ৯১ হাজার টাকা আত্মসাৎ করে। এঘটনায় আশুলিয়ার আরো কয়েকজন শ্রমিক নেতাও জড়িত আছে বলে জানা যায় ।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত দুই শ্রমিক নেতারা টাকা ভাগাভাগি নিয়ে পাল্টা পাল্টি অভিযোগ করছে। জাগো বাংলাদেশ শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি শ্রমিক নেতা মামুন বলেন, আমি টাকা দিয়ে এসেছি, জীবন তার অফিসে শ্রমিকদের টাকা দিয়েছে। কারখানার মালিক আমার পরিচত দেখে আমি গিয়েছি। আমি কোনো টাকা নেইনি।

তবে বাংলাদেশ রেডিমেট গার্মেন্টস ও ওয়ার্কাস ফেডারেশনের সভাপতি জাহিদুর রহমান জীবন বলেন, আমি ১৬ হাজার টাকা খরচ করেছি ৩০ হাজার টাকা পেয়েছি। কিন্তু সেখানে পুলিশ আর মামুন পরে ১ লাখ ৯ হাজার টাকা শ্রমিকদের দিয়ে বাকি টাকা নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে শিল্প পুলিশ-১ এর পুলিশ সুপার (এসপি) আসাদুজ্জামান বলেন, বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।