কালীরঞ্জন শীলের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত: ১০:০৮ পূর্বাহ্ণ , ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২১

মুক্তিযুদ্ধে গেরিলা বাহিনীর অন্যতম সংগঠক, সাবেক ছাত্রনেতা ও বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য কালীরঞ্জন শীলের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ১৯৯৯ সালের আজকের এ দিনে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তিনি মারা যান।

১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে আবাসিক ছাত্রনেতা হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলে অবস্থানকালে তিনি পাকিস্তানি হানাদারদের হাতে ধরা পড়ে অলৌকিকভাবে বেঁচে যান।

কালীরঞ্জন শীল ১৯৪২ সালে বরিশালের উজিরপুরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬৪ সালে বিএম কলেজ থেকে বিএসসি পাশ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। এমএসসি শেষ করে তিনি এমএড-এ পড়াশুনা করেন। ১৯৭০ সালে তিনি তার শিক্ষাজীবন সমাপ্ত করেন। এর পরপরই মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন। ২৫ মার্চ মৃত্যুর হাত থেকে অলৌকিকভাবে বেঁচে গিয়ে তিনি ভারতে আশ্রয় নেন। সেখানে তিনি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়লেও মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নানা ধরনের কাজে অংশগ্রহণ করেন।

দেশ হানাদারমুক্ত হওয়ার পরে কালীরঞ্জন শীল দেশে ফিরে এসে বাংলাদেশ-সোভিয়েত মৈত্রী সমিতির কাজের সাথে যুক্ত হন। পার্টি থেকে দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে তিনি বিভিন্ন দেশের সাথে মৈত্রী-সংহতি আন্দোলন ও সংগঠনের কাজে একজন প্রধান সংগঠন হয়ে ওঠেন। একই সাথে তিনি বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের কাজে জড়িত হন এবং এই সংগঠনের একজন অতি গুরুত্বপূর্ণ সংগঠক হয়ে ওঠেন। এসব সংগঠনের কাজে তিনি মো. নবী ও আলী আকসাদের অনেকটা সেকেন্ড ম্যান হয়ে ওঠেন। তাছাড়াও পার্টির হেড কোয়ার্টারকে কেন্দ্র করে নানা ধরনের যেসব কাজ কর্ম হতো, তার অনেক কাজের সাথেই কালীরঞ্জন শীল জড়িত থাকতেন।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা রুনু দাশ জানান, তার বার্ষিক ক্রিয়া শুক্লা অষ্টমীতে সম্পন্ন হবে।