আমাকে কেন বিপর্যয়ে পড়তে হয় শুধু আওয়ামীলীগের শাসনামলেই!

প্রকাশিত: ১১:২৭ পূর্বাহ্ণ , জুন ৮, ২০২০

প্রবীর সিকদার

তখন বিএনপির শাসনামল। ভালুকায় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক এক আড্ডায় আমি প্রকাশ্যে দোর্দণ্ড প্রতাপশালী দুর্ধর্ষ রাজাকার মাওলানা আবুল কালাম আজাদ ওরফে বাচ্চু মিলিটারিকে ‘কুত্তার বাচ্চা’ বলায় কয়েক সাংবাদিক আমার বিরুদ্ধে পুলিশ লেলিয়ে দেওয়ার কাজ করেছিলেন।

তখন উপস্থিত কয়েক মুক্তিযোদ্ধা আমার নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েছিলেন। পরে অবশ্য মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শানিত কয়েক সাংবাদিক ও উপস্থিত মুক্তিযোদ্ধাদের সাহসী ভূমিকায় ভালুকা থানা পুলিশ আমাকে নিরাপত্তা দিয়ে ঢাকার বাসে তুলে দিয়েছিলেন এবং আমি ঢাকায় বাসায় না পৌঁছানো পর্যন্ত তারা আমার সার্বক্ষণিক খবর নিয়েছেন।

ওই ঘটনার কয়েকদিন পর ওই বাচ্চু রাজাকার এনটিভিতে প্রচারিত তার নিজস্ব প্রোগ্রামে আমার বিরুদ্ধে উস্কানি মূলক বক্তব্য দিয়েছিলেন। তখন কেউ কেউ শঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকার আমার বিরুদ্ধে কোনও কঠিন পদক্ষেপ নিতে পারে! কিন্তু না, আমার বিরুদ্ধে তারা হয়রানিমূলক কোনও পদক্ষেপ নেয়নি।

বড় পরিতাপের বিষয়, একবার খুন করতে আমার ওপর নৃশংস হামলা হয়েছে। মৃত্যুর সাথে লড়ে লড়ে বেঁচে গেছি। আরেকবার ৫৭ ধারার হয়রানিমূলক মামলায় আমাকে কারাগারে ঢোকানো হয়েছে। আমার ওপর ঘটে যাওয়া ওই দুই দুঃখজনক ঘটনাই ঘটেছে আওয়ামীলীগের শাসনামলে! অবশ্য এটাও সত্য যে, অতি দ্রুততার সাথেই আওয়ামীলীগের শীর্ষ নেতৃত্ব এবং দেশের সর্ব স্তরের মানুষ আমার দুর্যোগ নিরাময়ে পাশে দাঁড়িয়েছেন।

আজ কেন যেন খুব মনে পড়ছে সেই ছোট বড় নানা বিষয়। শুধু ভালুকার মুক্তিযোদ্ধা কিংবা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় শানিত কয়েক সাংবাদিক কিংবা ভালুকার পুলিশ নয়, আমার নানা বিপর্যয়ে যারা আমার পাশে দাঁড়ান, সকলের প্রতি আমার গভীর শ্রদ্ধা রইলো।## উত্তরাধিকার ৭১ নিউজ থেকে নেয়া