কালি ও কলম সম্পাদক আবুল হাসনাত আর নেই

প্রকাশিত: ১:১২ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ১, ২০২০

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে না ফেরার দেশে চলে গেলেন সাহিত্য পত্রিকা কালি ও কলমের সম্পাদক, কবি ও সাংবাদিক আবুল হাসনাত (ইন্না নিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। 

রোববার সকাল ৮টায় ধানমণ্ডির আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।

মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ছায়ানটের জ্যেষ্ঠ নির্বাহী কর্মকর্তা অনিন্দ্য রহমান।

ছায়ানটের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, রোববার বেলা সাড়ে ১২টায় ধানমণ্ডির ৭ নম্বর রোডের বায়তুল আমান জামে মসজিদে আবুল হাসনাতের জানাজা হবে। তার আগে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য আবুল হাসনাতের কফিন বেঙ্গল ফাউন্ডেশন ও ছায়ানটে নিয়ে যাওয়া হবে।

জাতীয় কবিতা পরিষদের সাধারণ সম্পাদক তারিক সুজাত বলেন, ‘তার আসলে অনেক সমস্যাই ছিল। বেশ কয়েকদিন ধরে তার শরীরে ব্যথা ছিল। গলব্লাডারের স্টোন ছিল, তারপরে আর অপারেশন করা যায়নি। শেষ মুহূর্তে তার নিউমোনিয়ার ট্রিটমেন্ট হচ্ছিল। তার কোভিড টেস্টের রেজাল্ট নেগেটিভ এসেছিল।’

বিকালে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে বলে তারিক সুজাত জানান।

আবুল হাসনাতের উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থগুলো হলো ‘জ্যোৎস্না ও দুর্বিপাক’, ‘কোনো একদিন ভুবনডাঙায়’, ‘ভুবনডাঙার মেঘ ও নধর কালো বেড়াল’।

তার প্রবন্ধগ্রন্থের মধ্যে রয়েছে সতীনাথ, মানিক, রবিশঙ্কর ও অন্যান্য ও জয়নুল, কামরুল, সফিউদ্দীন ও অন্যান্য।

শিশু ও কিশোরদের জন্য তিনি লিখেছেন ‘ইস্টিমার সিটি দিয়ে যায়’, ‘টুকু ও সমুদ্রের গল্প’, ‘যুদ্ধদিনের ধূসর দুপুরে’, ‘রানুর দুঃখ-ভালোবাসা’।

আবুল হাসনাত ১৯৪৫ সালের ১৭ জুলাই পুরান ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। সাহিত্যে তার ছদ্মনাম ছিল মাহমুদ আল জামান।

দীর্ঘ ২৪ বছর দৈনিক সংবাদের সাহিত্য সাময়িকী সম্পাদনা করা আবুল হাসনাত আমৃত্যু কালি ও কলমের সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন। পাশাপাশি চিত্রকলা বিষয়ক ত্রৈমাসিক ‘শিল্প ও শিল্পী’রও তিনি সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া তিনি ছায়ানটের একসময় সহ-সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন।

১৯৮২ সালে ‘টুকু ও সমুদ্রের গল্প’ র জন্য আবুল হাসনাত অগ্রণী ব্যাংক শিশু সাহিত্য পুরস্কার পান। ২০১৪ সালে তিনি বাংলা একাডেমির সম্মানসূচক ফেলো মনোনীত হন।