চট্টগ্রামের ২৫৩ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা

প্রকাশিত: ৬:৪৪ অপরাহ্ণ , সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২০

এনবিআরের ভ্যাট গোয়েন্দা সংস্থা চট্টগ্রামের অভিজাত শপিংমল মিমি সুপার মার্কেটে জরিপ চালিয়ে দেখতে পায় যে, অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নতুন ভ্যাট আইনের অন্তর্ভুক্ত হয়নি। অল্পসংখ্যক প্রতিষ্ঠান ভ্যাট নিবন্ধন নিলেও বেশিরভাগ আইন পরিপালন করছে না।  এনবিআরের ভ্যাট গোয়েন্দার জরিপ বলছে, চট্টগ্রামের নাসিরাবাদ, বায়েজিদ বোস্তামি সড়কে অবস্থিত মিমি সুপার মার্কেটে ২৬৩টি প্রতিষ্ঠান রয়েছে। অনেকে দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করছে। তারা দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ব্রান্ডের ভোগ্যপণ্য বিক্রি করছে। কেউ কেউ পণ্য আমদানির সাথেও জড়িত।

এনবিআরের নির্দেশে পরিচালিত এই জরিপ অনুসারে, ২৬৩টির মধ্যে নতুন আইনে নিবন্ধিত হয়েছে মাত্র ৬০টি। অবশিষ্ট ২০৩টির কোন নিবন্ধন নেই।তারা ভ্যাটও দেয় না।ঐ মার্কেটে এই ২০৩টি দোকান দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করে আসছে।

ভ্যাট গোয়েন্দার গোপন তথ্য অনুযায়ী, এরা কাস্টমারের নিকট থেকে ভ্যাট আহরণ করলেও তা সরকারি কোষাগারে জমা দেয় না।
ভ্যাট আইন অনুযায়ী বাধ্যবাধকতা থাকলেও এই ২০৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থানীয় ভ্যাট অফিসে দাখিলপত্রও দেয় না। এতে দেখা যায়, তারা আইন ভঙ্গ করে ব্যবসা পরিচালনা করছে।

অন্যদিকে, জরিপে দেখা যায়, শপিংমলের ৬০টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান নিবন্ধনভুক্ত হলেও অনেকে প্রকৃত বিক্রয় অনুযায়ী রিটার্ন ও ভ্যাট পরিশোধ করছে না।এদের মধ্যে মাত্র ১০টি প্রতিষ্ঠানে ভ্যাট সনদ ঝুলিয়ে রেখেছে। অবশিষ্ট ৫০টি নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠানে দৃশ্যমান স্থানে ভ্যাট সনদ পাওয়া যায়নি।ভ্যাট আইন অনুযায়ী নিবন্ধন সনদ দৃশ্যমান স্থানে ঝুলিয়ে রাখা বাধ্যতামুলক, যাতে ক্রেতা বুঝতে পারেন তিনি সঠিক স্থানে ভ্যাট দিচ্ছেন।

আইনের বিধান অনুসারে নিবন্ধন গ্রহণ না করায় এনবিআরের ভ্যাট গোয়েন্দা আজ অনিবন্ধিত ২০৩টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে পৃথকভাবে মামলা দায়ের করেছে।

একইসাথে নিবন্ধিত ৬০টির মধ্যে ৫০টি প্রতিষ্ঠান নিবন্ধন সনদ ঝুলিয়ে না রাখায় ভ্যাট আইনে তাদের বিরুদ্ধেও অনিয়ম মামলা করা হয়েছে।এই অনিয়মের দায়ে তাদের প্রত্যেককে ১০,০০০ টাকা করে জরিমানা করার বিধান রয়েছে।  তবে ভ্যাট গোয়েন্দার প্রতিবেদন অনুযায়ী, অনিবন্ধিত ২০৩টি মামলা দায়েরের অভিযোগের পাশাপাশি ব্যবসার শুরু থেকে তাদের প্রকৃত খরচের ভিত্তিতে পূর্বের ফাঁকিকৃত ভ্যাট হিসাব করে বকেয়া ও মাসিক ২% হারে সুদসহ জরিমানা আদায়ের জন্য চট্টগ্রাম ভ্যাট কমিশনারেটকে অনুরোধ করা হয়েছে।

ভ্যাট আইনে দায়েরকৃত মোট ২৫৩টি মামলা আইনানুগভাবে ন্যায়নির্ণয়নের জন্য ইতোমধ্যে অভিযোগসমূহ সংশ্লিষ্ট নিয়ন্ত্রণকারী চট্টগ্রাম ভ্যাট কমিশনারেটে প্রেরণ করা হয়েছে।

ভ্যাট গোয়েন্দা সংস্থার উপপরিচালক তানভীর আহমেদের নেতৃত্বে এই জরিপ কার্যক্রম পরিচালিত হয়।তার দল ৭ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রামের মিমি সুপার মার্কেট সরেজমিনে পরিদর্শন করে।এসময় মিমি সুপার মার্কেট মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থেকে ভ্যাট গোয়েন্দাদের জরিপ কাজে সহযোগিতা করেন।

যেসব প্রতিষ্ঠান ভ্যাট এ নিবন্ধিত নয় এবং যাদের বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা দেয়া হয়েছে —তুলি শাড়ী, পিন্ধন, নিউ আঁচল, আদরী, অপরূপা শাড়ী, মহসিন’স, মিস আর্ট, ফ্যামিলি ফুড, আল আয়েশা বোরকা, মিউজিক ক্লাব, ড্রিম গার্ডেন, আয়শা বোরকা ফ্যাশন, ইউটেন সিকো, জেএম স্টোর, ঠুমরী, লাইসিয়াম, মিমি জুয়েলার্স, অন্যন্যা, অংকুর, আফগান বোরকা, নিউ মডার্ন মাহী জুয়েলার্স, তুর্কি ফ্যাশন ১, তুর্কি ফ্যাশন ২, নিউ তুর্কি ফ্যাশন, আরা, নিউ কনক বাহার জুয়েলার্স ১, নিউ কনক বাহার জুয়েলার্স ২, বনরূপা জুয়েলার্স, রূপমহল জুয়েলার্স, মোহনা জুয়েলার্স, তরঙ্গ জুয়েলার্স, মদিনা বোরকা, আল ফারিয়াল জুয়েলার্স, ভিক্টোরিয়া, সাফা ফ্যাশন, নিউ কনক বাহার জুয়েলার্স ৩, কাশ্মির ফ্যাশন, মিনি ইন্ডিয়া, এসপি আশালতা জুয়েলার্স, আল ফ্যাশন জুয়েলার্স, নিউ কনক মালা জুয়েলার্স, সন্দ্বীপ জুয়েলার্স, আরব জুয়েলার্স, হুজুরের দোকান ১, বধুবরণ জুয়েলার্স, টাইম স্কয়ার, জেমস গ্যালারি, ব্লু স্টোন, পূরবী জুয়েলার্স, আইসি, আল মদিনা বোরকা, অঙ্গনা, কটন ইন, স্টেপ ইন, লেডিস গ্যালেরি, রেভলন, চ্যালিস, হিপস্ ওয়্যার, কে রহমান কালেকশন, পপস্ টেইলার্স, হিজাব ১, হিজাব ২, কিডস্ এন্ড পপস, আর এক্স সুজ, আল মালেক ১, আল মালেক ২, বো-বে, সু-ডেইজি, গার্লী সুজ, এমকে কালেকশন ১, আর এক্স সুজ, এম কে কালেকশন ২, এক্সক্লুসিভ প্লাস, ফ্যাশন কালেকশন, সু গ্যালারি, ইউর চয়েস, হিল টুটু, নেক্সট কালেকশন, লোটাস, ফ্যাশন ফেয়ার, নিউ অনন্ত সুজ, সু এক্সপ্রেস, রাবা সুজ, তৃষা টেইলার্স, পাপ্পু টেইলার্স, কমপ্লিটম্যান ১, মেসার্স অনিক্স, হুজুরের দোকান ২, শৈশব, চেনাসুর, হান্টার চয়েস, দি সেল হাউজ, রবিন সুজ, পারি, কমপ্লিটম্যান ২, পেন্টালোনস, মিনিমুন, স্টাইল কালেকশন, শুচি, থাইসপ, ওপাল হাউজ ১, ওপাল হাউজ ২, স্প্যালাস, আরিজা, ম্যাক, রং বে রং, নিউ চ্যান্সেলর, চলতি ফ্যাশন, মিমি লেডিস টেইলার্স, রিয়া টেইলার্স, ড্রাগন মার্ট, হুজুরের দোকান ৩, জেলোজিয়া, আবির লেডিস টেইলার্স, নেক্সটেল, প্রাবন টেইলার্স, পেন্ট ফেয়ার, প্রাইম স্টোর, ফেয়ারী লেডিস টেইলার্স, অপ্সরা ফ্যাশন হাউজ, অর্চনা, প্রিয়া টেইলার্স, ললনা টেইলার্স, কারেন্ট বুক সেন্টার, গ্লিমস, প্রেনা টেইলার্স, মায়াবী ফ্যাশন, আলো ফ্যাশন, রুৎমিলা, সাগর টেইলার্স, এম এম টেইলার্স, নিউ কৃষ্ণা টেইলার্স, নকশী টেইলার্স, নিউ মাস্টার টেইলার্স, রিমিক্স টেইলার্স, মিতা স্টোর, আফগান বোরকা, অনিক টেইলার্স, শাওন মনি, অঙ্গসাজ টেইলার্স, সানি টেইলার্স, অন্তর টেইলার্স, পুতুল টেইলার্স, দেবদুত লেডিস টেইলার্স, মেসার্স আচঁল, মেসার্স তন্বী, হ্যাপী টেইলার্স, নাহার আই টি পার্ক, স্টার অন্তর টেইলার্স, নিউ প্রিয়া টেইলার্স, আশরাফিয়া টেইলার্স, উইং প্লেনেট, পূরবী জুয়েলার্স ১, পূরবী জুয়েলার্স ২, পরী লেডিস টেইলার্স, চৌধুরি লেডিস টেইলার্স, তুর্কি ফ্যাশন, নোহা লেডিস টেইলার্স, জৈতা টেইলার্স, শান্তা লেডিস টেইলার্স, মিতা স্টোর, মীম ফ্যাশন, নিউ মনি, অঙ্গনা টেইলার্স।