কেএনএফ সন্ত্রাসী কার্যক্রম যতদিন চালিয়ে যাবে যৌথ বাহিনীর অভিযান চলমান থাকবে

প্রকাশিত: ১০:৩৭ অপরাহ্ণ , মে ১৩, ২০২৪

বান্দরবান প্রতিনিধি:-

বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী বান্দরবানের থানচি ও রুমা উপজেলার বিভিন্ন অপারেশন এবং সীমান্ত এলাকা পরিদর্শন করেছেন।

আজ সোমবার (১৩ ) সকালে বিজিবি’র বান্দরবান সেক্টরের আওতাধীন বলিপাড়া ব্যাটালিয়ন (৩৮ বিজিবি) পরিদর্শন করেন। এর পাশাপাশি বিজিবি সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। মতবিনিময়কালে বিজিবি মহাপরিচালক অপারেশনাল, প্রশিক্ষণ ও প্রশাসনিক বিভিন্ন বিষয়ে দিকনির্দেশনা প্রদান করেন। এরপর বিজিবি মহাপরিচালক বলিপাড়া ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ স্পটহাইট টিওবি, থানচি বিওপি এবং থানচি বাজার পোস্ট পরিদর্শন করেন।

পরে বিজিবি মহাপরিচালক রুমা ব্যাটালিয়ন (৯ বিজিবি) এর ব্যাটালিয়ন সদর এবং অধীনস্থ দোপানিছড়া বিওপি পরিদর্শন করেন।

মতবিনিময় শেষে বিজিবি’র মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী সাংবাদিকদের বলেন, স্বাধীন রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গিয়ে কেএনএফ সন্ত্রাসীরা ব্যাংক ডাকাতির মতো দুঃসাহসিকতা সন্ত্রাসী কার্যকলাপ দেখিয়ে কেউ পার পাবে না। অত্রএলাকার সাধারণ বম জনগোষ্ঠীরাও কেএনএফের সন্ত্রাসী কার্যকলাপ সমর্থন করেন না। কেএনএফ সদস্যরা সন্ত্রাসী কার্যকলাপ যতদিন চালিয়ে যাবে যৌথ বাহিনীর অভিযান ততদিন চলমান থাকবে।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে সেনাবাহিনীর আওতাধীন বিভিন্ন বাহিনী মিলে যৌথ অভিযান হিসেবে সরকারের আদেশে কুকি-চিন সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে যৌথ বাহিনীর অভিযান চলছে। থানচি বলিপাড়া ৩৮ বিজিবি ও রুমা ৯ বিজিবি সদস্যরা সক্রিয়ভাবে এ যৌথ অভিযানে অংশগ্রহন করছে। তাদেরকে উৎসাহ ও পরামর্শ প্রদান করার জন্য তিনি এ সফরে এসেছেন বলে জানান।

এদিকে থানচি বলি পাড়ায় একটি নতুন বেইস ক্যাম্প করা হয়েছে এবং বিভিন্ন সীমান্ত এলাকায় অপারেশন এবং সীমান্তের ওপারে যাহাতে কেএনএফ সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যেতে না পারে সেজন্য বিজিবির সকল সদস্যরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।

এ সময় বান্দরবান বিজিবির সেক্টর কমান্ডার কর্ণেল সোহেল আহমেদ, কক্সবাজার রিজিয়ন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ মোর্শেদ আলম এবং বান্দরবান ব্রিগেড কমান্ডার মেহেদি হাসান, রুমা ৯ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্ণেল হাসিবুল হকসহ বিজিবি’র উর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য যে গত ২ ও ৩ এপ্রিল রুমা ও থানচিতে সোনালী ও কৃষি ব্যাংকে ডাকাতি, ব্যাংক ব্যবস্থাপক অপহরণ, টাকা লুট ও পুলিশ-আনসারের ১৪টি অস্ত্র ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। ব্যাংক ব্যবস্থাপক উদ্ধার হলেও লুট হওয়া অস্ত্র ও টাকা উদ্ধার করা যায়নি।

সশস্ত্র সংগঠন কেএনএফ এ সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটিয়েছে বলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জানিয়েছে। সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার, অস্ত্র ও টাকা উদ্ধারের অভিযানে অংশ নিচ্ছেন সেনাবাহিনী, বিজিবি, র‍্যাব, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা। অভিযান সমন্বয় করছে সেনাবাহিনী।

Loading