পেইনকিলার যখন সত্যি কিলার হয়ে উঠতে পারে

প্রকাশিত: ১:০৬ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ২৭, ২০২২

শরীরে সমস্যা হলেই মুড়িমুড়কির মতো ওষুধ খাওয়ার প্রবণতা অনেকের মধ্যেই রয়েছে৷ অথচ ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া নিয়মিত এমন ওষুধ খেলে মৃত্যুর আশঙ্কাও উড়িয়ে দেওয়া যায় না৷ বিশেষ করে পেইনকিলার সত্যি কিলার হয়ে উঠতে পারে৷

নিকোলাস হেনিঙার আইস হকি খেলতে খুব ভালোবাসেন৷ কম বয়সে সেই শখের কারণে তিনি বেশ কয়েকবার চোট পেয়েছিলেন৷ শরীরে মোট আটটি অপারেশন করতে হয়েছিল৷ ব্যথা দূর করতে তাঁকে মূলত মেটামাইজোল ওষুধ দেওয়া হয়েছিল৷ কিন্তু সেই ওষুধের কারণে কঠিন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা দিলো৷ স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে নিকোলাস বলেন, ‘‘এমন পরিস্থিতিতে পড়লে এবং প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করলে ওরা যা দেয়, কোনো প্রশ্ন না করে সেটা খেয়ে নেওয়া ছাড়া কোনো উপায় থাকে না৷ তাতে কাজও হয়৷”

তীব্র ও লাগাতার ব্যথা কমাতে মেটামাইজোল দেওয়া হয়৷ অন্ত্রে কলিক ব্যথা, পেটে খিঁচুনি অথবা ভীষণ জ্বরের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হলেও প্রদাহ কমাতে সেটা ব্যবহার করা হয় না৷ কিন্তু সম্ভাব্য পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার কারণে এই ওষুধের প্রয়োগ নিয়ে প্রায়ই প্রবল বিতর্ক দেখা যায়৷

নিকোলাস প্রথমদিকে কোনো সমস্যা ছাড়াই মেটামাইজোল খেয়েছেন৷ কিন্তু বছর দুয়েক আগে আচমকা তিনি ভীষণ জ্বরে কাবু হয়ে পড়েন৷ সেই অবস্থার বর্ণনা করে তিনি বলেন, ‘‘একটা সময়ে জ্বর আরও খারাপ দিকে এগোতে লাগলো৷ তখন আমাকে কোনো একটা ওষুধ দেওয়া হলো৷ ফলে প্রবল গলা ব্যথা হলো৷ গিলতে কষ্ট হচ্ছিল, মাথাব্যথায় কাহিল ছিলাম৷ খারাপ ফ্লুয়ের মতো অনুভূতি হচ্ছিল৷”

ডাক্তাররা তার রক্ত পরীক্ষা করে অত্যন্ত কম গ্র্যানুলোক্টাইট পেলেন, যা সাদা রক্ত কোষের একটা সাব গ্রুপ৷ অর্থাৎ তাঁর সংক্রমণ মোকাবিলার ক্ষমতা কমে প্রায় শূন্যে দাঁড়িয়েছিল৷ মেটামাইজোলের সাইড এফেক্ট হিসেবে অ্যাগ্রানুলোসিটোসিস হবার সম্ভাবনা রয়েছে৷ ব্যথা চিকিৎসক হিসেবে প্রো. ভল্ফগাং কপার্ট বলেন, ‘‘অ্যাগ্রানুলোসিটোসিস অত্যন্ত বিপজ্জনক ও অত্যন্ত বিরল রোগ হওয়া সত্ত্বেও আসলে কিন্তু সহজেই এর চিকিৎসা করা যায়৷ সাধারণত তিনটি উপসর্গ দেখে এই রোগ শনাক্ত করা যায়৷ গলা ব্যথা ও জ্বর হয় এবং মুখ অথবা গলায় সাদা পদার্থ জমা হয়৷”

সংক্রমণ থেকে নিকোলাসকে রক্ষা করতে তাঁকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছিল এবং রক্তে গ্র্যানুলোসাইট বাড়াতে তাঁকে ইনফিউশন দেওয়া হয়েছিল৷ তিনি বলেন, ‘‘একটা সময়ে প্রতি মিনিটে উন্নতি টের পেতে লাগলাম৷ তরল পান, খাওয়া, মাথাব্যথা, কাশি – সবকিছু ভালো হতে লাগলো৷”

কয়েকদিন পর রোগ নিরাময় হলো৷ নিকোলাস আবার বাসায় ফিরতে পারলেন৷ তাঁর ক্ষেত্রে যে পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছিল, তা নাকি অন্যান্য পেনকিলার ওষুধের তুলনায় অনেক বিরল৷

ডাক্তারদের মতে, ইবুপ্রোফেন বা ডাইক্লোফেনাকের মতো আরো বেশি প্রচলিত ওষুধ আসলে অনেক বেশি বিপজ্জনক৷ প্রো. কপার্ট বলেন, ‘‘বছরে আমরা মোটে ৫০ থেকে একশোটি অ্যাগ্রানুলোসিটোসিসের কেস দেখি, যার মধ্যে সামান্য ভগ্নাংশের মৃত্যু হয়৷ অন্যদিকে ওষুধের দোকানে সহজেই কেনা যায়, এমন ব্যথার ওষুধের কারণে হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হয়৷ গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল ব্লিডিং, কার্ডিওভাসকুলার ফেলিয়ার বা কিডনি বিকল হয়ে যায়৷”

কখনো করোনারি ধমনী সরু হয়ে যায়, যা হৃদযন্ত্রে রক্তপ্রবাহ সীমিত করে তোলে৷ তখন হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বেড়ে যায়৷ ডাক্তাররা ইবুপ্রোফেন ও ডিক্লোফেনাকের সঙ্গে এমন অবস্থার সংযোগ দেখতে পান৷ যে সব মানুষ অনেক বছর ধরে বিশাল পরিমাণে এমন পেনকিলার খেয়ে চলেছেন, তাঁদের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি৷ ডাক্তার হিসেবে ইয়ান স্টর্ক মনে করেন, ‘‘এর মধ্যে সম্পর্কের যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে, কারণ আমরা জানি যে কার্ডিওভাস্কুলার সিস্টেমের উপর এই সব ওষুধ, বিশেষ করে ডাইক্লোফেনাকের অত্যন্ত কড়া পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া রয়েছে৷ হার্ট অ্যাটাকও হতে পারে৷”

সে কারণে ডাক্তাররা পেনকিলার ওষুধ সম্পর্কে বার বার সতর্ক করে দেন৷ নিয়মিত এমন ওষুধ খেলে মৃত্যুও হতে পারে৷ ফলে লাগাতার ব্যথা থেকে রেহাই পেতে ডাক্তারের পরামর্শ নেওয়াই সেরা পথ৷

সুসানে ক্লুগে-পাউস্টিয়ান/ডয়চে ভেলে