আত্মবিশ্বাসী হোন

প্রকাশিত: ৯:২০ পূর্বাহ্ণ , সেপ্টেম্বর ২৭, ২০২২
প্রিয়দর্শী চাকমা
আত্মবিশ্বাস একটি সহায়ক শক্তি।মানুষের মাঝে আত্মনিশ্বাস থাকলে যে কোন কঠিন পরিস্থিতিও খুব সহজে মোকাবেলা করতে পারে। যার মাঝে আত্মবিশ্বাস নাই সে সে যদি শতবার চেষ্টাও করে তবুও সে সফল হবেনা কারণ তার মাঝে আত্মবিশ্বাস নেই।আত্মবিশ্বাস মানে নিজের উপর বিশ্বাস রাখা।নিজেকে চেনা,নিজেকে জানা,নিজের সক্ষমতা, যোগ্যতা ভাল করে জানার পর সে মোতাবেক কাজে নেমে পড়ার নাম আত্মবিশ্বাস। প্রতিটা মানুষের কিন্তু যোগ্যতা থাকে,অন্যকে কিছু করে দেখারও ইচ্ছা থাকে মানুষের মাঝে,কিন্ত তারা কাজ করতেই পারবে সেরকম বিশ্বাস বা সাহস তাদের মনে থাকেনা।ফলে তারা সফলও হতে পারেনা। অনেক মানুষ আছেন আত্মবিশ্বাসে ভরপুর,তারা সফল হতে চায় কিন্তু তাদের মনে আবার অজানা ভয়ও কাজ করে যদি সফল হতে না পারে তখন কি হবে?
কিছু মানুষ আছেন তারা সবসময় অন্যদের মনে ভীতির সঞ্চার করে তারা উৎসাহের পরিবর্তে মানুষকে নিরুৎসাহিত করে। তারা প্রায়ই বলে থাকে আরে তুমি কি করছো এতো বড়ো কাজ বিপদে পড়বে। ঐসব লোকের নেতিবাচক কথা শুনে আত্মবিশ্বাসী লোকগুলি যারা সামনে এগুনোর চেষ্টা করে তারাও থতমত খেয়ে পড়ে। দেখা যায় কোন কাজ শুরু করার আগেই লেজ গুটিয়ে নেয়।
সেজন্য আমি বলি ঐ নেতিবাচক কথাবার্তা বলা মানুষদের কথা না শুনে নিজের মতো কাজ করে যাওয়াটাই হলো বুদ্ধিমানের কাজ। এটা একান্ত আমার বাস্তবতার ঝুড়ি থেকে বের করলাম। আমি যখন আমার এলাকার স্কুল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়ে ছিলাম সে সময় আমাকেও ঐ নেতিবাচক কথাবার্তা বলা লোক গুলো আমাকে উৎসাহের পরিবর্তে নিরুৎসাহিত করেছিল। তবে আমি তাদের নেতিবাচক কথায় গুরুত্ব না দিয়ে আমি আমার সিদ্ধান্তে অটল ছিলাম আমি কখনও পিছপা হইনি ঘাবড়ে যায়নি।
আমরা মহাভারতে দেখতে পায় অভিমন্যু যখন মায়ের গর্ভে ছিলেন তখন তিনি চক্রব্যুহ ভেদনের কথা শুনেছিলেন।যদ্ধের ময়দানে যখন গুরু দ্রোণাচার্যের রচিত চক্রবুহ্যের ভেদন করা কথা আসে তখন সকল যোদ্ধার মনেবল ভেঙ্গে পড়ে নিরাশ হয় তখনি বলবান অভিমন্যু গর্ব করে ভেদন করার কথা বলে উঠলেন।
অভিমন্যুর আত্মবিশ্বাসের মূলে ছিল মারগর্ভে থাকাকসলীন শুনার প্রেরণা।মারগর্ভে থাকতে ছয়টা ব্যুহ ভেদন করার কথা শুনেছিল সাতটা নয় এই সাতটা ব্যুহ ভেদ করতে গিয়ে কিন্তু তার মৃত্যু হয় কারণ সে ছয়টার কথা জানে সাতটা নয়।যেকোন যুদ্ধে হারজিত থাকে বীরের বেশে মৃত্যুও আছে। অভিমন্যুের মৃত্যু হলেও সে বীরের বেশে মৃত্যুবরণ করেছেন সেই মৃত্যুই তাকে ইতিহাসের পাতায় অমর করে রেখেছে তার মধ্যে আত্মবিশ্বাস ছিল বলে।
হ্যা তবে এমনই হয় অনেক সময় হত-দরিদ্র, বংশ গৌরব না থাকলেও আত্মবিশ্বাসের পথে বাঁধা আসে, তবে যে সমস্ত মানুষগুলি এসব ভেদ করতে পারে অদম্য আত্মবিশ্বাস থাকে তারা জীবনে সফল হয়।
আবার অনেক সময় সমালোচার জোরেও আত্মবিশ্বাস লোপ পায় যেকোন কাজে সমালোচনা করা সমাজের মানুষের একটা কাজ, তারা পজিটিভ নেগেটিভ নিয়েই সমালোচনায় মুখর থাকবেই। সে যাই হোক সমালোচনা চলবে তবে যে ব্যক্তিদ্বয় এ সমালোচনা গুলি পাত্তা না দিয়ে অদম্য আত্মবিশ্বাসের সাথে এগিয়ে চলে সে সফলতা পেতে বাধ্য আর যপ ব্যক্তিদ্বয় এই সমালোচনার বেড়াজালে আটকে যায় নিজের আত্মবিশ্বাসকে ধুলোয় মিশে দেয় সে কখনও সফল হতে পারবেনা।
সেজন্য সমালোচনায় প্ররোচিত না হয়ে নিজের ইতিবাচক দিককে সামনে রেখে আত্মবিশ্বাসের সাথে নিজের অভীষ্ট লক্ষ্যে এগিয়ে যেতে হবে। সমালোচনা কারীকে সমালোচনা করতে দিন তাদের সাথে বিরোধে যাওয়ার কোন প্রয়োজন নেই। আপনি নিজেকে শান্ত রাখুন, চুপ থাকুন ধৈর্যের সাথে মোকাবেলা করুন। দেখবেন একদিন আপনার সফলতায় সেই সমালোচনাকারীদের চোখের ঘুম হারাম হবে তারা কোথাও শান্তি খুঁজে পাবেনা।
উদ্দেশ্যকে দৃঢ় করুন, অদম্য চেষ্টার অধিকারী হোন, আত্মবিশ্বাসের অতুলনীয় হোন,নিজের কাজ ছাড়া অন্য কিছু বুঝবেননা, জীবনের লক্ষ্যকে স্থির করুন সফলতা এসে ধরা না দিয়ে যাবে কোথায়?
আত্মবিশ্বাসের সাথে যেকোন একটা কাজে হাত দিন দেখবেন আপনার সফলতার দ্বার খুলে গেছে উদ্দেশ্য একবার পূরণ হয়েছে এতেই আপনার মনে আরো বিরাট আত্মবিশ্বাসের জন্ম নিবে পরবর্তী উদ্দেশ্য সাধনের জন্য বিব্রত কিংবা বেগ পেতে হবেনা। এভাবে প্রকৃতির অন্তর্নিহিত শক্তি সমূহ প্রত্যেক পদক্ষেপে আপনাকে আশীর্বাদ স্বরূপ সাহায্য করবে কোন শক্তিই আপনাকে আত্মবিশ্বাসের পথে বাধা সৃষ্টি করতে পারবেনা।
আপনার আত্মবিশ্বাস আপনার শুভাকাঙ্ক্ষী, আপনার আত্মবিশ্বাস আপনার বন্ধু,আত্ম বিশ্বাস আমাদের মায়ের মতো,আত্মবিশ্বাস আমাদের শক্ত মাটিতে পা রেখে দাঁড়াতে শেখায়।
আত্মবিশ্বাসকারী মানুষের কর্মই যেন মূলমন্ত্র হয় তারা ভাগ্যে বিশ্বাসী নয় তারা নিজেরা ভাগ্য রচনা করে। আত্মবিশ্বাসের সাথে যে কোন কাজে লেগে থাকুন সফলতার মুখ দেখতে পাবেন জয়ের মাল্য গলায় পড়ে হাসতে পারবেন নিশ্চই। আসুন আত্মবিশ্বাসে বিশ্বাসী হই, নিজের মাঝে আত্মবিশ্বাস জাগিয়ে তুলি নিজেকে দুর্বল না ভেবে নিজের দর্বলতা ভেঙ্গে চুরমার করে দিন আত্মবিশ্বাসে বলীয়ান হোন,আর আমাদের পাহাড়ী ফুটবল কণ্যাদের দেখুন তাদের আত্মবিশ্বাস অদম্য ইচ্ছা শক্ত কতো দৃঢ়।