রামগড়ে সরকারি ওএমএস’র  আটা কালোবাজারে বিক্রির দায়ে ডিলারশীপ বাতিল

বাহার উদ্দিন বাহার উদ্দিন

রামগড় প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৭:৪৮ অপরাহ্ণ , মে ১৭, ২০২২

খাগড়াছড়ির রামগড়ে ওএমএস’র  আটা  কালোবাজারে বিক্রির অভিযোগে   পৌরসভার সোনাইপুল বাজার এলাকার ডিলার মেসার্স  হারুণ ট্রেডার্সের  ডিলারশীপ বাতিল করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পরিচালিত ভ্রাম্যমান আদালত  এ আদেশ দেন। মঙ্গলবার (১৭মে) সকালে  রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাতের নেতৃত্বে  ভ্রাম্যমান আদালতের এ অভিযান পরিচালিত হয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়,   রামগড় পৌর এলাকার তিনটি স্থানে   তিনজন ডিলারের মাধ্যমে খোলা বাজারে ওএমএস’র চাল ও আটা বিক্রি করা হয়। প্রতি ডিলারকে দৈনিক ১৫০০ কেজি চাল ও ১০০০ কেজি আটা বরাদ্দ দিয়ে জনপ্রতি ৫ কেজি হারে বি ৩০ টাকা কেজি দরে চাল ও  ১৮ টাকা দরে আটা বিক্রির নিয়ম। অথচ পৌরসভার সোনাইপুল বাজার এলাকার ডিলার মেসার্স  হারুন ট্রেডার্সের মালিক মো: হারুনের বিরুদ্ধে  অভিযোগ  উঠে তিনি ন্যায্যমূল্যের চাল ও আটা গরীব লোকজনদের কাছে বিক্রি না করে অধিক দামে স্থানীয় ব্যবসায়িদের কাছে গোপনে বিক্রি করেন। দীর্ঘদিনের এমন অভিযোগের  প্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসন ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে অভিযানে নামেন। মঙ্গলবার পরিচালিত এ অভিযানে ডিলার হারুণের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের সত্যত্যা পান আদালত। সোনাইপুল বাজারের   আলমগীর স্টোরর কাছে  ওএমএস’র  প্রায় ২০০ কেজি আটা অধিকমূল্যে গোপনে বিক্রির প্রমাণ পান ভ্রাম্যমান আদালত।  সংশ্লিষ্ট ডিলার  মো: হারুণ এ ব্যাপারে আদালতের কাছে লিখিতভাবে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও  দেন। এ অবস্থায়  ওএমএস ডিলার খোলা বাজারে খাদ্যশস্য বিক্রয় (ওএমএস) নীতিমালা, ২০১৫ এর ১২(খ) এর অংগীকারনামা ভংগ করায় মেসার্স হারুন ট্রেডার্সেরর  ওএমএস ডিলারশীপ বাতিল করে ভ্রাম্যমান আদালত।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দিন আরাফাত জানান, সোনাইপুল বাজার এলাকায় শীঘ্রই নতুন ডিলার নিয়োগ করা হবে।