আশুলিয়ায় ঈদের সামনে কারখানা গেটে শ্রমিকদের ছবিসহ ছাঁটাই এর নোটিশ

প্রকাশিত: ৬:৩০ অপরাহ্ণ , এপ্রিল ৬, ২০২২

আশুলিয়ায় একটি কারখানার ১১০ জন শ্রমিককে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এঘটনায় শ্রমিকদের ছবি ও ব্যাক্তিগত তথ্য সহ দেয়ালে নোটিশ দিয়েছে ওই কারখানাটি।

৬ এপ্রিল বুধবার দুপুরে আশুলিয়ার জামগড়া হামিদুল্যাহ ম্যানশনে গিয়ে ফ্যাশনইট কোম্পানি লিমিটেড কারখানার দেয়ালে ছবি ও বব্যাক্তিগত তথ্যসহ শ্রমিকদের চাকরিচ্যুতের নোটিশ টাঙ্গানো দেখা যায়।

শ্রমিকরা জানান, দীর্ঘ দিন ধরে ওই কারখানা আনুমানিক হাজার থেকে ১ হাজার ২০০ শ্রমিক কাজ করে আসছিল। প্রায়ই কারখানায় কাজের রেট (প্রাইস) কম দেয় কারখানা কতৃপক্ষ। পরে গত ৫ দিন ধরে কাজ বন্ধ করে কর্মবিরতি পালন করছিল শ্রমিকরা। এছাড়া জ্যাকার্ড সেকশনের শ্রমিকদের উৎপাদন (প্রডাকশন) বাড়িয়ে দেয় কতৃপক্ষ। পরে জ্যাকার্ডের শ্রমিকরা লিংকিং সেকশনে এসে কাজ বন্ধ করে দেয়। সব শ্রমিক মিলে পরে কর্মবিরতি পালন শুরু করে।

চাকরিচ্যুত শ্রমিক ওয়াশিম বলেন, আমাদের কাজ জ্যাকার্ডের শ্রমিকরা বন্ধ করে দেয়। পরে সব শ্রমিক কর্মবিরতি পালন করে। আগামীকাল টার্মিনেশন বেনিফিট দেওয়ার কথা আছে। আমরা চাই না কোন ঝামেলা হোক। আমরা আমাদের আইনগত পাওনা বুঝিয়ে চাই।

অপর শ্রমিক মনির বলেন, গত ৪ থেকে ৫ দিন ধরে ওই কারখানায় কর্মবিরতি করছে শ্রমিকরা। গতকাল হঠাৎ করে শ্রমআইন ১৩ এর ক ধারায় কারখানা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করে কতৃপক্ষ। এর পর আজ ১১০ জনের ছবিসহ চাকরিচ্যুতের নোটিশ দেয়ালে টাঙ্গানো হয়। শ্রমিকদের ছবিসহ কারখানায় চাকরিচ্যুতের নোটিশ দেওয়া অন্যায়। এছাড়া আমাদের কোন বেতন কিংবা আইনগত পাওনাদি পরিশোধ করা হয় নি। সামনে ঈদ, আমাদের পুরো পরিবারের ঈদের আনন্দ মাটি হয়ে গেল।

স্বাধীন বাংলা গার্মেন্টস শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি আল কামরান বলেন,ঈদের আগে ১১০ জন শ্রমিককে ছাঁটাই করাটা অন্যায়। ছাটাঁইকৃত শ্রমিকদের পূণর্বহালের দাবী জানান।

তিনি আরও বলেন, বাজারদর বেশী যে বেতন পাচ্ছে তা দিয়ে শ্রমিকরা আর চলতে পারছেনা বিধায় তারা তাদের বেতন ও পিস রেট বাড়ানোর আন্দোলন করছে। শ্রমিকদের এই আন্দোলন যুক্তিক তাই শ্রমিকের দাবী মেনে নিয়ে পুনারায় কারখানা খোলা এবং শ্রমিকদের পুনরায় কাজের পরিবেশ তৈরী করে দেওয়ার দাবী জানান। দেয়ালে শ্রমিকদের ছবি এভাবে টাঙ্গানো আইন সম্মত নয়। দেয়ালে ছবি টাঙ্গিয়ে চাকুরিচ্যুত করা রীতিমত অন্যায়।

এব্যাপারে কারখানার অ্যাডমিন ম্যানেজার আব্দুল মালেক বলেন, আপনি আইন টা ভালোভাবে দেখেন ২৬ ধারা অনুযায়ী যদি শ্রমিকরা অবৈধভাবে ধর্মঘট করে, তাহলে তার পাওনা দিয়ে বের করতে পারে। আপনি আইন টা ভালো করে দেখেন। শ্রমিকদের ছবিসহ দেয়ালে তালিকা দেওয়া যুক্তিসংগত কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঠিক আছে আপনি যদি যুক্তিসংগত মনে না করেন তাহলে আমার করার কিছু নাই। বাংলাদেশের প্রতেকটা ফ্যাক্টরি এভাবেই চলে।