নিজের করা মামলায় বাবুলের জামিন নামঞ্জুর

প্রকাশিত: ২:৩২ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ২৫, ২০২২

স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু খুনে শ্বশুরের মামলার পর সাবেক এসপি বাবুল আক্তারের জামিন মেলেনি এবার নিজের করা মামলাতেও। আজ মঙ্গলবার দুপুরে মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমানের আদালত এ সংক্রান্ত আবেন নামঞ্জুর করে আদেশ দেন। মহানগর পিপি ফখরুদ্দিন চৌধুরী বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এর আগে গত ৯ জানুয়ারি পিবিআইয়ের আবেদনের প্রেক্ষিতে এবং আদালতের নির্দেশে উক্ত মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে নগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন ওআর নিজাম রোডে ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে গিয়ে গুলি ও ছুরিকাঘাতে খুন হন মিতু। এই ঘটনায় তখন বাবুল আক্তার বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাত পরিচয় তিনজনকে আসামি করে একটি মামলা করেন। সে সময় বাবুল আক্তার দাবি করেন, জঙ্গিরাই তার স্ত্রীকে গুলি করে হত্যা করেছে।

উক্ত মামলা ডিবি পুলিশ হয়ে তদন্তের দায়িত্ব পায় পিবিআই। তদন্ত শেষে সংস্থাটি গত বছরের ১২ মে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। যেখানে বলা হয়, বাবুল আক্তারই স্ত্রী মিতুকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করেন। এদিকে পিবিআইয়ের ওই চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে একই বছরের ১৫ অক্টোবর আদালতে নারাজি পিটিশন দাখিল করেন বাবুল আক্তার। গত ৩ নভেম্বর শুনানি অনুষ্ঠিত হলে চূড়ান্ত প্রতিবেদনের সাথে নারাজি পিটিশনটিও খারিজ করে দেন ম্যাজিস্ট্রেট এবং মামলাটি অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেন।

প্রসঙ্গত, বাবুলের মামলায় পিবিআই যেদিন আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে সেদিন পাঁচলাইশ থানায় মিতু খুনের ঘটনায় বাবুল আক্তারসহ ৮ জনকে আসামি করে বাবুলের শ্বশুর মিতুর বাবা মোশারফ হোসেন নতুন একটি মামলা করেন। শ্বশুরের করা সে মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়, বাবুল আক্তারই পরিকল্পিতভাবে স্ত্রী মিতুকে লোক লাগিয়ে হত্যা করে। একপর্যায়ে বাবুল আক্তারকে শ্বশুরের করা এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়। আগের দিন অর্থাৎ গত বছরের ১১ মে ঢাকা থেকে ডেকে নিয়ে তাকে হেফাজতে নেয় পিবিআই। সে থেকে এখন পর্যন্ত তিনি এ মামলায় ফেনী কারাগারে আছেন।