সরকারি জমি আত্মসাতের অভিযোগে বিরুলিয়া আ’লীগের সভাপতির বিরুদ্ধে বন বিভাগের মামলা

প্রকাশিত: ১০:২০ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ১৫, ২০২১

সাভারে ভুয়া দলিলের মাধ্যমে সরকারি জমি একটি আবাসন প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগে আওয়ামী লীগ নেতাসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে বন বিভাগ। মামলাটি তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডিকে।

মামলার আসামিরা হলেন- বিরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হালিম(৬৩), তার ভাই আব্দুল মালেক(৭৪), ভাতিজা মোঃ মোক্তার হোসেন(৪৪), সহযোগী কবির হোসেন হাওলাদার(৬৯) ও আবাসন প্রতিষ্ঠান গ্লোরিয়াস ল্যান্ডস এন্ড ডেভেলপমেন্ট লিঃ এর সত্বাধীকারী একেএম মজিবুল হক (৭৫)।

মামলা দায়েরের পর পর সিআইডি রোববার রাতে আসামি আওয়ামী লীগ নেতা হালিমের ভাতিজা মোক্তার হোসেনকে গ্রেপ্তারের পর পালাতক রয়েছেন ওই আওয়ামী লীগ নেতাসহ অপর আসামিরা।

ঢাকা বন বিভাগের কালিয়াকৈর রেঞ্জের বাড়ইপাড়া বিটের ফরেস্টার মো. শহীদুল আলম জানান, বন বিভাগের বিক্রি করে দেওয়ার জমির মূল্য দেড়’শ কোটি টাকার উপরে। সাভারের বিরুলিয়া এলাকায় বন বিভাগের সরকারি প্রায় ২ একর জমি ভুয়া দলিল বানিয়ে আবাসন প্রতিষ্ঠানের কাছে বিক্রি করে দেন বিরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হালিম ও তার সহযোগীরা।

সাভার সাব-বন বিটের আওতাভুক্ত কমলাপুর মৌজার সিএস ও এস এ ২২৩, ২৫৩ এবং আরএস ৬৪৪, ৬৪৬,৬৪২ ও ৬৪৩নং দাগের অন্যন্য সম্পত্তি সহ ১.৮২ একর জমির মালিক ও ভোগ দখলকারী ঢাকা বন বিভাগ।

কিন্তু বিরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল হালিমসহ তার সহযোগীরা এই সরকারি সম্পত্তি আত্মসাৎ করার উদ্দেশ্যে ভুয়া দলিলের মাধ্যমে সাভার সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে উপস্থাপন করে আম-মোক্তার নামা দলিল সম্পাদন করে ঢাকার গ্লোরিয়াস ল্যান্ডস এন্ড ডেভেলপমেন্ট লিঃ এর নিকট বিক্রি করে।

সাভার মডেল থানার বিরুলিয়া ফাড়ির ইনচার্জ আব্দুল কুদ্দুস বলেন, সিআইডির পক্ষ আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু হয়েছে। এক আসামি গ্রেপ্তার হলেও বাকিরা পলাতক রয়েছেন। তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।