রাবি সাংস্কৃতিক জোটের সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদ

শামীম রেজা শামীম রেজা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত: ৪:১৬ অপরাহ্ণ , অক্টোবর ২৪, ২০২১

রাবি প্রতিনিধি
সম্প্রতি সারাদেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিমা-মন্দির ভাঙচুর, ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয় (রাবি) কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোট। আজ রোববার (২৪ অক্টোবর) বেলা ১১টায় বিশ^বিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে আয়োজিত এক প্রতিরোধ সমাবেশে তারা এ প্রতিবাদ জানায়।

মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক শাহ্ আজম শান্তনু বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান অসাম্প্রদায়িক আদর্শের ওপর ভিত্তি করেই গোটা বাংলাদেশকে একত্রিত করেছিলেন। আমরা দেখেছিলাম সকল সম্প্রদায়, শ্রেণি-পেশার মানুষ, বুদ্ধিজীবী, সাংবাদিক, শিক্ষক এমনকি কামার-কুমার কেউই পিছিয়ে ছিলেন না একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায়। কিন্তু আজ স্বাধীনতার ৫০ বছর পর আমাদেরকে যখন আবার সেই সাম্প্রদায়িক শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে হয় এটা সত্যিই লজ্জাজনক।

প্রতিবাদ সমাবেশে ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ও বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত নাট্যকার মলয় ভৌমিক বলেন, এই একবিংশ শতাব্দীতে আমরা রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও সামাজিক জীবনে এক ভিন্ন উপসর্গ লক্ষ করছি। ভারত উপমহাদেশসহ বিশে^র উন্নত দেশেও ধর্ম, বর্ণ, জাতি, আঞ্চলিকতা এসব বিষয়কে উসকে দিয়ে ফায়দা লোটার চেষ্টা করা হচ্ছে। আমাদের সবচেয়ে বড় ব্যর্থতা আমরা আমাদের তরুণ যুব সমাজকে তৈরি করতে পারছি না। সম্প্রতি যে ঘটনাগুলো ঘটেছে তাতে শুধু স্থানীয়ভাবে যারা জড়িত তাদের হাতই না, এর সাথে সম্পৃক্ত আন্তর্জাতিক ব্যবসা বাণিজ্য, ভূ-রাজনৈতিক অবস্থা। এই জায়গাগুলোতে যদি আমরা উন্নতি করতে না পারি তাহলে এমন ঘটনা কিন্তু বারবার ঘটতেই থাকবে। যে ঘটনাগুলো ঘটেছে এর সাথে জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে বিচারের দাবি জানাচ্ছি।

সংগঠনের সভাপতি মহিউদ্দিন মানিকের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন দর্শন বিভাগের অধ্যাপক এস এম আবু বকর, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক অমিত কুমার দত্ত, বিশ^বিদ্যালয় শাখা ছাত্র ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক মহোব্বত হোসেন মিলন প্রমুখ। সমাবেশে সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সাবেক সহ-সভাপতি আজম খান। এসময় প্রায় ৩০ জন সাংস্কৃতিক কর্মী উপস্থিত ছিলেন।