স্বরচিত কবিতা

প্রকাশিত: ৩:১৮ অপরাহ্ণ , জুন ১৭, ২০২১

বৃষ্টির ধরা

সামছুদ্দোহা ফরিদ
আকাশে ভেঙেছে বাঁধ
কালো সাজ ধরনী ঢাকা,
নামবে বুঝি বৃষ্টির ধারা,
তাই, মন বসে না ঘরে,সবাই আজ দিশেহারা।
ক্ষণে ক্ষণে দেখা যায় আলোকের ঝলক
হারিয়ে যায়,পড়তে না পড়তে আখিঁ পলক।
মন রথে ভেসে আসে কারো কান্নার সুর
ঘুম ভাঙে না কারো,মনে বাঁজে বৃষ্টির সুমধুর।
মাঠ, ঘাট, রাস্তা সবই যেন ফাঁকা
মন মানসীর মনে যেন ছন্দ আকাঁ।
টুইটুম্বুর দীঘীতে উপচে পড়া নীর বাণ
মন ছুঁয়ে যায়,মন কেঁড়ে নেয়,অজানা এক টান।
থেমে আছে পৃথিবীর সব কলোরব
ভেসে আসে শুধু ভেজা দাঁড় কাকের ক্ষীণ রব।
এ বাড়ি,ও বাড়ি, কারো নেই সাড়া
ঘুমিয়ে পড়েছে নিশ্চিন্তে যেন সব পাড়া।
দল বেঁধে খেলে যুবক কিশোরের দল
ডুব সাঁতারে মেতেছে, মানবে না কোন ছল।
খড়ের কুন্ডলী পাঁকিয়ে খেলে তারা ফুটবল
মানে না বাঁধন,বাঁধ ভাঙা মনের কোলাহল।
দূর থেকে বৃষ্টির সাদা বর্ষণ ধারা
স্নাত হয়েছে ঘর বাড়ি গাছ পালা।
ঐ দূর বহু দূর নৌকার সাদা পাল
ঝড় ঝাপটায় মাঝি ধরেছে হাল।
গান থেমে আছে, নাই তার সুর
দিতে হবে পাড়ি, যেতে হবে বহু দূর।
মেহনতী মানুষের উপবাস,উনুনে নেই আগুন
বাতাসে বৃষ্টির ঝাপটায়, কষ্ট বাড়ে তাতে দ্বিগুন।
ছিন্ন সিক্ত কাপড়ে শিশুর মা চিন্তা রেখা তার ভালে
খাদ্য যুগাতে ছুঁটতে হবে,সুদিন আসবে তার কোন কালে।
বাতাসে কাঁপে কুঁড়ের ঘর,ঝরে বৃষ্টির পানি
উত্তরে প্রবল বাতাসের ঝাপটা,কালো অবনী।
এমনি দিনে নীরব হননে শুনে কে কার কথা
সুখের সাগরে ভাসে যে জন,বুঝে না পর ব্যথা।