সম্প্রীতির অনন্য নজির, হিন্দু পণ্ডিতের লাশ মুসলিমদের কাঁধে

প্রকাশিত: ১২:২০ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ২৪, ২০২১

মানবধর্ম সবচেয়ে বড় ধর্ম। তারই প্রমাণ দিল সাম্প্রতিককালের এই ঘটনা। তুষারপাতে সাদা হয়ে গিয়েছে ভারতের কাশ্মীর। তাপমাত্রার পারদ ক্রমশ নিম্নমুখী। বরফের রাস্তায় হাঁটতে গেলে পা ঢুকে যাচ্ছে, এক কোমড় বরফ ডিঙিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে স্থানীয়দের। 

কুয়াশার চাদরে দেখা যাচ্ছে না চারিদিক। এই কঠিন পরিস্থিতিতে হিন্দু পণ্ডিত পরিবারকে সাহায্যের হাত বাড়ালেন মুসলিম প্রতিবেশীরা।

কাশ্মীরি হিন্দু পণ্ডিতের মৃতদেহ কাঁধে নিয়ে ১০ কিলোমিটার পথ হেঁটেছেন মুসলিমরা। এমনকি সৎকারের কাজেও হাত লাগান তারা। কাশ্মীরের সোপিয়ান জেলার এই ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই মুসলিমদের প্রশংসা চলছে ভারতজুড়ে।

কাশ্মীরি পন্ডিত ভাস্কর নাথ হাসপাতালেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। জানা যায়, কিডনি ফেল করেই মৃত্যু ওই ব্যক্তির। মৃত্যুকালে বয়স হয়েছিল ৬০। কিন্তু ভারী তুষারপাতের কারণ রাস্তাঘাট বন্ধ হয়ে যায়। শ্রীনগর থেকে পারগোচি যাওয়ার পথে আটকে যায়। সেই সময় গাড়ির চালক বাড়িতে ফোন করে জানায়, গাড়ি আর এগোবে না।  পণ্ডিতে শবদেহ যথাস্থানে নিয়ে যেতে মানুষের কাঁধ লাগবে।

সেই সময় মুসলিম প্রতিবেশীরাই এগিয়ে আসেন। এই ঘটনা দেশজুড়ে এক অনাবিল তৃপ্তি জোগাচ্ছে। কারণ,  নয়ের দশকে কাশ্মীর ভূখণ্ড থেকে কয়েক লক্ষ কাশ্মীরি পণ্ডিতকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। চলত ধর্ষণ, গণহত্যার মতো ঘটনা। ৬ লক্ষ থেকে কাশ্মীরে পণ্ডিতে জনসংখ্যা কমতে কমতে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৩ হাজারে। দেশটিতে সম্প্রীতির বার্তা দিচ্ছে এই গোটা ঘটনা।