চট্টগ্রামে মানা হচ্ছে না ইমারত-নির্মাণ আইন

প্রকাশিত: ১:০৭ অপরাহ্ণ , জানুয়ারি ৯, ২০২১

চট্টগ্রাম মহানগরে ভবন নির্মাণে মানা হচ্ছে না ইমারত-নির্মাণ আইন। এতে নগরীতে বাড়ছে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনের সংখ্যা। এ নিয়ে নগরবাসীর অভিযোগ থাকলেও লোকবলের অভাবে সঠিক তদারকি সম্ভব হচ্ছে না বলে জানায় চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।

ভূমি মালিকের সঙ্গে চুক্তির পর বিভিন্ন ডেভেলপার কোম্পানি অনুমোদনের বাইরে ভবন নির্মাণ করছে চট্টগ্রাম মহানগরে।

ডেভেলপার কোম্পানি বিধি ভঙ্গ করে ভবন নির্মাণ করায় আগ্রাবাদের একজন ভূমি মালিক চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ-সিডিএ’র কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। পাল্টা অভিযোগ করে ডেভেলপার কোম্পানিও। ফলাফল উভয়পক্ষকে কিছুদিন কারাবাস করতে হয়।

প্লট মালিক মো. সাইফুদ্দীন বলেন, এইভাবে করে যদি সে পার পেয়ে যায় এবং আইনগত পদক্ষেপ যদি সরকার না নেয় তাহলে মানুষ নিরুৎসাহিত হবে। তখন মানুষ অন্যায়ের পর অন্যায় করতে থাকবে।

এটি চট্টগ্রাম মহানগরের অনেক ঘটনার উদাহরণ মাত্র। বিধি ভঙ্গ করে ভবন নির্মাণ হচ্ছে তা স্বীকার করে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ জানায়, জনবলের অভাবে ঠিকমতো তদারকির করা যাচ্ছে না।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস বলেন, তদারকির গাফিলতিও আছে। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে নোটিশ করে রাখে কিন্তু ভাঙে না। কিছু ক্ষেত্রে ভাঙা হয়েছে কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এগুলো ভাঙ্গা হয় না। আইনের প্রয়োগ যদি আমরা কঠোরভাবে না করি তাহলে তো মানুষ আইন মানবে না।

২০১৯ সালে ভবন নির্মাণ সংক্রান্ত ৫৭টি এবং ২০২০ সালের নভেম্বর পর্যন্ত ২৩টি অভিযোগ এসেছে সিডিএ’র কাছে। বেশির ভাগ অভিযোগের সুরাহা হয়নি। তবে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান সংস্থাটির প্রধান প্রকৌশলী।

প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস আরও বলেন, আমাদের কঠোর হতে হবে, সিডিএ’র কঠোর হতে হবে। যারা এটার সাথে জড়িত আছেন প্রতিমাসে তাদের একটি সমন্বিত বৈঠক করে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত। এসব বিল্ডিং না ভাঙলে ভবিষ্যতে মানুষ সিডিএ’র আইন মানবে না।

সিটি করপোরেশনের জায়গা এবং খাল দখল করে ভবন নির্মাণের অভিযোগও রয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে কঠোর হওয়ার তাগিদ সিটি করপোরেশনের।

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন বলেন, তদন্ত করে দেখবো যদি কর্পোরেশনের জায়গায় কেউ অবৈধভাবে কাজ করে থাকে, সে যতবড় শক্তিশালী মানুষ হোক না কেন আমরা এ বিল্ডিং ভাঙতে বাধ্য হবো।

ভবন নির্মাণ তদারকির জন্য সিডিএ’র ২৫ জন পরিদর্শক রয়েছেন।