‘মূর্তিপূজা করা আর ভাস্কর্যকে সম্মান জানানো এক নয়’

প্রকাশিত: ৬:০০ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ২২, ২০২০

মূর্তিপূজা করা আর ভাস্কর্যকে সম্মান জানানো এক নয়। সৌন্দর্য চর্চা ইসলামী শিক্ষায় নিষিদ্ধ নয়। রোববার (২২ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোটের নেতারা এ কথা বলেন। তারা বলেন, রাজনৈতিক ফায়দা লাভের জন্য ধর্মের অপব্যাখ্যা করে সহজ সরল মানুষকে বিভ্রান্ত করছে ধর্মের লেবাসধারীরা।

মুসলিম রাষ্ট্র সৌদি আরবের মূল কেন্দ্রে এই মুষ্টিবদ্ধ হাতের ভাস্কর্যটির নাম দ্য ফিষ্ট। শুধু সৌদি আরব নয় মুসলমানদের অধিকার নিয়ে বিশ্বে যে কয়েকটি দেশ সোচ্চার তারমধ্যে অন্যতম তুরস্ক। তুরস্কের বহুস্থানে স্থাপন করা হয়েছে আধুনিক তুরস্কের রূপকার কামাল আতাতুর্কের ভাস্কর্য।

সম্প্রতি জাতির পিতার ভাস্কর্য নিয়ে বিরোধীতার উন্মাদনায় মত্ত কয়েকটি ধর্মীয় সংগঠন। তাদের দাবি ভাস্কর্য ইসলামবিরোধী বিষয়।

আরও পড়ুন: ৭৬ বার পেছাল সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন

রোববার (২২ নভেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এই দাবির যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলে বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোট। কোরআনের আয়াত সুরা ও হাদিসের লাইনের লিখিত ব্যাখ্যা দিয়ে জোটের সভাপতি বলেন, মূর্তি পূজা আর ভাস্কর্যে শ্রদ্ধা নিবেদন দুটি ভিন্ন বিষয়।

বাংলাদেশ সম্মিলিত ইসলামী জোটের সভাপতি হাফেজ মাওলানা জিয়াউল হাসান বলেন, রাজনৈতিক ফায়দা লাভের জন্য ধর্মের অপব্যাখ্যা করে সহজ সরল মানুষকে বিভ্রান্ত করছে ধর্মের লেবাসধারীরা।

বর্তমানে হেফাজতে ইসলামের নেতৃত্ব দিচ্ছে উগ্র মৌলবাদীরা। আর এজন্যই তারা কট্টরপন্থায় হাঁটছেন বলেও মন্তব্য করেন হাফেজ মাওলানা জিয়াউল হাসান।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, প্রার্থনা করার নিয়তে শহীদ মিনার, স্মৃতিসৌধ কিংবা কোনো ভাস্কর্যে মানুষ ফুল দেয় না বরং যা করা হয় তা হলো শ্রদ্ধা নিবেদন। এটির ভিন্ন-ব্যাখ্যা করছে ধর্মান্ধরা।