নারী পুলিশের জন্য হিজাবকে ইউনিফোর্ম হিসেবে স্বীকৃতি

নিউজিল্যান্ড পুলিশের প্রথম হিজাবী মুসলিম নারী অফিসার

প্রকাশিত: ১:৫৭ অপরাহ্ণ , নভেম্বর ১৮, ২০২০

মুসলিম নারীদের হিজাবকে ইউনিফর্ম হিসেবে পরিধানের সুযোগ দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের পুলিশ বিভাগ। আর ইউনিফর্ম হিসেবে হিজাব পরিধান করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সবার নজরে এসেছেন নিউজিল্যান্ডের প্রথম মুসলিম নারী পুলিশ অফিসার জিনা আলি।

জিনা আলির ছবিটি বিশ্বের সবার মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এমন অভিনব কাজে বৈচিত্রময় ও সংবেদনশীল মনোভাবের পরিচয় ফুটে ওঠে।

গত শুক্রবার (১৩ নভেম্বর) নিউজিল্যান্ডের পুলিশ বিভাগ ফেসবুক পেজের এক পোস্টে জানায়, জিনা আলি প্রথম নারী কনস্টেবল, যিনি ইউনিফর্ম হিসেবে হিজাব পরিধান করেছেন। এর পর থেকে তা বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে তা বিশ্বের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে গুরুত্বের সঙ্গে প্রকাশ করা হয়।

২০১৯ সালের মার্চ মাসে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চের দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার পর দেশটির পুলিশ বিভাগে যোগ দেন ৩০ বছর বয়সী জিনা আলি। দুর্ঘটনার সময় পুলিশে যোগ দিয়ে মুসলিম কমিউনিটিকে সহযোগিতায় অনুপ্রাণিত হন তিনি। প্রশান্ত মহাসাগরের ফিজি দ্বীপপুঞ্জে জন্মগ্রহণ করলেও শৈশবেই পাড়ি জমান তিনি নিউজিল্যান্ডে। বেড়ে ওঠেন সেখানেই।

জিনা বলেন, ‘নিউজিল্যান্ডের পুলিশ বিভাগের ইউনিফর্ম হিসেবে হিজাব পরিধান করে সবার সামনে আসতে পেরে আমি খুবই গর্ব অনুভব করছি। কারণ এর ডিজাইনে আমিও অংশগ্রহণ করেছিলাম।’

পুলিশের হিজাব ইউনিফর্মের ডিজাইনেও অংশগ্রহণ করেন জিনা। পেশাগত নতুন দায়িত্বের পাশাপাশি নিজ ধর্মীয় নির্দেশনা পালনের অনুপ্রেরণা কাজ করে তাঁর মধ্যে।

জিনা বলেন, ‘রয়েল নিউজিল্যান্ড কলেজে পুলিশ কলেজ স্টাফ তাঁর প্রশিক্ষণকালে হালাল খাবর পরিবেশন ও নামাজের জন্য বিশেষ রুমের ব্যবস্থা করে। সাঁতার কাটতে হলে আমি দীর্ঘ হাতার বিশিষ্ট সাতাতের পুরো পোশাক পরিধান করতাম। যাতে আমার শরীর ঢাকা থাকে।’

জিনা আরো বলেন, ‘পুলিশে যোগ দিয়ে মাত্র পশিক্ষণ শুরু করেছি এমন সময় ক্রাইস্টচার্চ সন্ত্রাসী হামলা সংঘটিত হয়। দুর্ঘটনার সময় আমার মনে হলো, মানুষের সহযোগিতায় এগিয়ে আসতে পুলিশ বিভাগে অনেক মুসলিম নারীদের যোগ দেওয়া জরুরি। আমি ওই সময় পূর্ণাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তা হলে আমি হতাহত ও তাঁদের পরিবারের সাহায্যে এগিয়ে আসতে পারতাম।’

‘পুলিশ সদস্যের হিজাব বলতে নারী পুলিশদের উদ্দেশ্য। আগে যে নারীরা হিজাব পরিধান করে পুলিশের দায়িত্ব পালনের কল্পনাও করতেন না তাঁরা এখন তা করার সুযোগ পাচ্ছেন। এটি অনেক বড় প্রাপ্তি যে পুলিশ বিভাগ আমার ধর্ম ও সংস্কৃতিকে ধারণের সুযোগ দিয়েছে।’

‘আমি খুবই অভিভূত যে আমার পরিহিত হিজাব স্বাস্থ্য, নিরাপত্তা ও নিজের ব্যক্তিগত চাহিদা পূরণ নিশ্চিত করতে পুলিশ বিভাগ সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালিয়েছেন।’

মিসরের নিযুক্ত নিউজিল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত গিরিগ লুওয়াইস টুইটারে বলেন, নিউজিল্যান্ড একটি উদার বৈচিত্রময় দেশ। এখানের সবার অধিকার রক্ষা করা হয়। নিউজিল্যান্ডের পুলিশ বিভাগ মুসলিম নারীদেরকে ইসলামী হিজাবকে ইউনিফর্ম হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

সূত্র : নিউজিল্যান্ড হ্যারাল্ড ও আল জাজিরা