চট্টগ্রামেও ঊর্ধ্বমুখী চালের বাজার

প্রকাশিত: ২:৪২ অপরাহ্ণ , সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২০

রাজধানীর ন্যায় চট্টগ্রামেও ঊর্ধ্বমুখী চালের বাজার। ৫০ কেজির প্রতি বস্তা চালের দাম বেড়েছে ২শ’ থেকে আড়াইশ টাকা। চালের বাজারে এমন পরিস্থিতির জন্য মিল মালিকদের দায়ী করছেন বিক্রেতারা। চাল আমদানির ক্ষেত্রে শুল্ক কমানোরও দাবি তুলেছেন তারা। 

খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, প্রতিদিন ট্রাক বোঝাই করে চাল ঢুকছে চট্টগ্রামের পাইকারি ব্যবসাকেন্দ্র পাহাড়তলী, খাতুনগঞ্জ, চাক্তাইয়ে। সরবরাহের কোন কমতি নেই। চালের বস্তা সাজিয়ে বসে আছেন দোকানিরা। এরপরও দাম বাড়ছে।

বর্তমানে পাইকারি বাজারে স্বর্ণা মোটা সিদ্ধ চাল বিক্রি হচ্ছে বস্তা প্রতি ২৩শ’ টাকা পর্যন্ত। যা এক মাস আগে বিক্রি হয়েছে দুই হাজার টাকার মধ্যে। একই অবস্থা অন্যান্য চালের ক্ষেত্রেও।

জানতে চাইলে খুচনা চাল ব্যবসায়ীরা বলছেন, ‘উত্তরবঙ্গে বন্যার কারণে চট্টগ্রামে চালের দাম একটু বেশি বাড়তি। মোকামে দাম বাড়ায় আমাদের বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। আমাদের করার কিছুই নেই।’

হঠাৎ করে চালের দাম বাড়ায় চাপ বেড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষের জীবনযাত্রায়। তারা বলছেন, ‘চালের দাম বেশি হওয়ায় তিন বেলার জায়গায় এখন দু’বেলা খাচ্ছি।’

আর সাধারণ ক্রেতারা বলছেন, ‘প্রতি বস্তায় দুই থেকে আুড়াইশ টাকা বেশি নেয়া হচ্ছে। মূলত যে চাল সাধারণ মানুষ খায়, সেটারই দাম বেড়েছে।’

চালের বাজারের এমন পরিস্থিতির জন্য উত্তারঞ্চলের মিল মালিকদের দায়ী করলেন ব্যবসায়ীরা। তারা এটাকে কৃত্রিম সংকট তৈরির চেষ্টা বলে মনে করছেন।

জানতে চাইলে চট্টগ্রাম চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মো. উমর আজম বলেন, ‘চালের দাম মূলত ধানের বাজারের উপর নির্ভর করে বেড়ে যায়, এবারও তাই হয়েছে। ফলে এ বছরও একটু অস্বাভাবিক হয়েছে চালের বাজার।’

পাহাড়তলী চাল আড়ৎ সমিতির সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন বলেন, ‘যারা আগে তেল, চিনিসহ বিভিন্ন পণ্যের সিন্ডিকেট তৈরি করে ব্যবসা করতো, তারাই এখন চাল মজুদ করে কৃত্রিম সংকট তৈরি করছে।’

এমতাবস্থায় বাজারে তদারকি বাড়ানোর পাশাপাশি আমদানি করা চালের উপর থেকে শুল্ক কমানোর দাবি ব্যবসায়ীদের।