সমসাময়িক প্রতিবেদন-স্বাস্থ্য

প্রকাশিত: ৭:৫১ অপরাহ্ণ , জুলাই ২৯, ২০২০

[১] লিখিত অলিখিত আইন কানুন ও বিধিবিধানের কারনে আমিসহ আমার মত অনেকেই সতর্কতার সাথেই কথাবার্তা বলাসহ মনের ভাব প্রকাশ করে থাকি। দেশের চলমান ঘুষ, দুর্নীতি, ব‍্যাংকের টাকা আত্মসাত, প্রকল্প থেকে পুকুর চুরি, বিদেশে অর্থ পাচারসহ নানা রকম অনিয়ম অবিচার আগেও ছিল এখনো চলছে। নাগরিক হিসেবে এসব প্রতিকার করার মত শক্তি সাহস ও সামাজিক অবস্থান আমার নেই। তাই এ নিয়ে কখনও মাথা ঘামাই না। একজন সিনিয়র সিটিজেন হওয়ার কারণে অভিজ্ঞতা থেকে বুঝে নিয়েছি, এই সব অব‍্যবস্থার সাথে মানিয়ে চলে জীবনের বাকি দিনগুলো পার করতে হবে। মেনেও নিয়েছি।

 

[২] ভয় হয়, কষ্ট হয়, যখন দেখি, করোনা মহামারির সুযোগ নিয়ে একদল পশু প্রবৃত্তির মানুষ তাদের দুস্কর্ম ও হরিলুট বানিজ‍্য করতে গিয়ে গোটা স্বাস্থ্য ব‍্যবস্থাকে চুরমার করে দিয়েছে ও স্বাস্থ্য ব‍্যবস্থার ওপর মানুষের অবিশ্বাস সৃষ্টি করেছে। জানিনা স্বাস্থ্য ব‍্যবস্থা কবে পুনরুদ্ধার হবে। আমাদের মত নিম্ন ও মধ‍্যবিত্ত এবং দরিদ্র মানুষদের সাধারণ ও জটিল রোগব‍্যাধিতে সামর্থ্যের মধ্যে কোন বিশ্বাসযোগ্য চিকিৎসা করার সুযোগ আছে বলে এখন আমার মনে হয় না।

[৩] জমিজমা ঘটিবাটি বিক্রি করে প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি হলেও শাহেদ ও সাবরিনা গং ও কথিত বিশেষ হাসপাতালগুলো প্রতারনামূলক মিথ্যা পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসা করে কয়েক লাখ টাকার একটা বিল ধরিয়ে দেবে। উচ্চবিত্তরা সামলাতে পারলেও বাকিরা নি:স্ব হয়ে যাবে। আর আমার মত বৃদ্ধ হলে বিলের সাথে নিজেরও লাশ হয়ে বেড়িয়ে আসার সম্ভাবনা বেশি। তাই প্রশ্ন জাগে, এরা কারা? যারা চিকিৎসা ব‍্যবস্থা নিয়ে সাধারণ জনগণের মধ‍্যে নাবিশ্বাস তৈরী করেছে। যারা করোনা চিকিৎসার নামে সাধারণ চিকিৎসা ব‍্যবস্থা তছনছ করে দিয়েছে। এখন সাধারণ মানুষ না পাচ্ছে সাধারণ রোগের চিকিৎসা,না পাচ্ছে করোনা সুচিকিৎসা। 

[৪] সাধারণ মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা আমাদের সকলের দায়িত্ব। তাই চিকিৎসক, রাজনীতিবীদ ও সুশীল সমাজসহ সকলকে এগিয়ে আসতে হবে। শক্তিশালী যেকোন মৌলিক কাঠামো ভেঙ্গে পড়া জাতির জন্য খুবই দুসমযের হাতছানি। নীতিনির্ধারকদের দায়িত্বশীলতার পরিচয় প্রদান করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করতে আকুল আবেদন।