মেট্রোরেলের উদ্বোধনে নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে র‌্যাব

প্রকাশিত: ৮:৩২ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ২৭, ২০২২

রাজধানীর মানুষের বহুল প্রতীক্ষিত মেট্রোরেলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। বুধবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মেট্রোরেলের উদ্বোধন করবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এ উপলক্ষে তুরাগের দিয়াবাড়ি এলাকায় নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হয়েছে।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক (প্রধান) কমান্ডার খন্দকার আল মঈন মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর কাওরান বাজারস্থ র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে একথা জানান।

খন্দকার আল মঈন বলেন, মেট্রোরেলের উদ্বোধনকে ঘিরে র‌্যাবের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট, ডগ স্কোয়াডসহ আকাশে র‌্যাবের হেলিকপ্টার টহল মোতায়েন থাকবে।

তিনি বলেন, বুধবার সকাল ১১টায় আমাদের স্বপ্নের মেট্রোরেল চালু হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী যাত্রী হিসেবে মেট্রোরেল উদ্বোধন করবেন। উত্তরার দিয়াবাড়িতে একটি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। পরে প্রধানমন্ত্রী মেট্রোরেলে চড়ে আগারগাঁও পর্যন্ত আসবেন। এ উপলক্ষে র‌্যাব একটি নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। মেট্রোরেলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও সমাবেশস্থলে অন্যান্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি র‌্যাবও নিরাপত্তা ব্যাবস্থা জোরদার করেছে।

বড় অনুষ্ঠানের ক্ষেত্রে র‌্যাব সুইপিং করে থাকে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘উদ্বোধনী অনুষ্ঠান ও সমাবেশস্থলে আমাদের ডগ স্কোয়াড টিম যথা নিয়মে সুইপিং করবে। পাশাপাশি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। টহল ও চেকপোস্ট থাকবে। যেসব জায়গায় আমাদের ভিভিআইপিরা যাবেন, সেসব জায়গায় আমাদের অতিরিক্ত নজরদারি থাকবে। সাদাপোশাকে গোয়েন্দারা থাকবে। একইভাবে কৌশলগত স্থানে র‌্যাবের বোম্ব স্কোয়াড, ডগ স্কোয়াড ও স্পেশাল ফোর্স থাকবে। মেট্রোরেলের দিয়াবাড়ি স্টেশন থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত আমাদের হেলিকপ্টার টহল থাকবে। থাকবে পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থাও।’

মেট্রোরেলের উদ্বোধনীর দিনে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে গণমাধ্যম শাখার মুখপাত্র বলেন, ‘ওই দিন আমাদের হেলিকপ্টার থাকবে। আমরা ওপর থেকে নজরদারি করবো। মেট্রোরেল লাইনের দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত যে কয়টি গুরুত্বপূর্ণ স্থান রয়েছে, যেটা আমরা মনে করি স্পেশাল নিরাপত্তা দেওয়ার প্রয়োজন, সেই স্থানগুলোতে র‌্যাবের গোয়েন্দা দল বিশেষ নজরদারিতে থাকবে। একইভাবে উঁচু ভবনগুলোতে (যে জায়গা থেকে নজরদারি করার প্রয়োজন) আমাদের গোয়েন্দা ও পোশাকে সদস্যরা থাকবেন। স্পেশাল চেকপোস্ট করার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীসহ ভিভিআইপি, বিদেশিরা যেসব জায়গায় যাবেন সেখানেও গোয়েন্দারা নজরদারি ও টহল দল থাকবে।’

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে কোনও ঝুঁকি আছে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, ‘এখন পর্যন্ত কোন ধরনের ঝুঁকির তথ্য নেই। সাইবার ওয়ার্ল্ডে আমাদের নজরদারি রয়েছে। এধরনের বড় অনুষ্ঠানে আমরা সব সময় প্রস্তুতি নিয়ে রাখি। কোন ধরনের নাশকতার শঙ্কা যদি থাকে, সেটাও যেন আমরা মোকাবিলা করতে পারি তার প্রস্তুতি রয়েছে।’