গাজায় নিহত বেড়ে ২১ হাজার, বাস্তুচ্যুত ১৮ লাখ

প্রকাশিত: ১:৫১ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ২৭, ২০২৩

বহুমুখী যুদ্ধে জড়িয়ে পড়েছে ইসরায়েল। গাজা ছাড়াও লেবানন, সিরিয়াসহ ৭টি ফ্রন্ট থেকে চলছে হামলা। বাড়ছে আঞ্চলিক উত্তেজনা। এ অবস্থায় মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক অভিযানের ইঙ্গিত দিয়েছে ইসরায়েল। একইসঙ্গে হামাসের বিরুদ্ধে গাজায় যুদ্ধ আরও অনেক মাস চলতে পারে বলে সতর্ক করেছে দেশটি। গেল ২৪ ঘন্টায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত হয়েছে কমপক্ষে ২৪০ ফিলিস্তিনি। নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২১ হাজারে পৌঁছেছে।

গাজায় আড়াই মাসের বেশি সময় ধরে হামাসের বিরুদ্ধে চলমান ইসরায়েলের যুদ্ধ এখন ছড়িয়ে পড়ছে ফিলিস্তিনের বাইরে। লেবানন সীমান্তে শুরু থেকেই ইসরায়েলকে লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র-ড্রোন হামলা চলছে। জবাবে পাল্টা হামলাও চালিয়েছে ইসরায়েল।

এরপর মিশর সীমান্তে ও লোহিত সাগরে ইয়েমেনের হুথি বিদ্রোহীদের সঙ্গেও বিরোধে জড়িয়েছে জায়নবাদীরা। একই সময়ে সিরিয়ায় ইসরায়েলি বিমান হামলায় ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তা নিহতের ঘটনায় উত্তেজনা বাড়ে। ইরাকেও হিজবুল্লাহ গোষ্ঠির সঙ্গে মিত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্রের পাল্টাপাল্টি হামলা চলছে।

এ অবস্থায় খোদ ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী সংসদে দেয়া ভাষণে বলেন, লেবানন, সিরিয়া, ইরাক, ইয়েমেন ও ইরানসহ ৭টি ফ্রন্ট থেকে হামলার শিকার ইসরায়েল। এরইমধ্যে ৬টি ফ্রন্টে পাল্টা হামলা চালানোর কথা উল্লেখ করে মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক অভিযানের ইঙ্গিত দেন তিনি।

অন্যদিকে, সংবাদ মাধ্যমে দেয়া সাক্ষাৎকারে ইসরায়েলি সেনাপ্রধান বলেন, চলমান যুদ্ধের অলৌকিক কোনো সমাধান নেই। জানান, হামাসকে নির্মূলে দীর্ঘমেয়াদী হবে যুদ্ধ।

গাজায় গেল ২৪ ঘণ্টায় অন্তত ১শ বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। এতে নিহত হয়েছে আড়াইশ’র বেশি ফিলিস্তিনি।

জাতিসংঘের তথ্য মতে, গাজার ২৩ লাখ বাসিন্দার মধ্যে ১৮ লাখের বেশি এখন বাস্তুচ্যুত।

Loading