চট্টগ্রাম-৮ উপনির্বাচনে জয়ী নোমান আল মাহমুদ

প্রকাশিত: ৪:৪৫ অপরাহ্ণ , এপ্রিল ২৮, ২০২৩

চট্টগ্রাম–৮ (চান্দগাঁও–বোয়ালখালী) আসনের উপ নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয় পেয়েছেন আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী নোমান আল মাহমুদ। তিনি নৌকা প্রতীকে ৬৭ হাজার ২০৫ ভোট পেয়ে বেসরকারি ভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের সেহাব উদ্দিন মুহাম্মদ আব্দুস সামাদ মোমবাতি প্রতীকে পেয়েছেন ৫ হাজার ৮৭ ভোট। সংসদের মেয়াদ শেষের আট মাস আগে এই আসনে উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হল। গতকাল রাত সোয়া ৮টায় নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়ামে নির্বাচন কমিশনের কন্ট্রোল রুম থেকে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রির্টানিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান ১৯০টি কেন্দ্রের ফলাফল ঘোষণা করেন।

নির্বাচনে অপর তিন প্রার্থী ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশের অধ্যক্ষ আল্লামা এস এম ফরিদ উদ্দীন চেয়ার প্রতীকে পেয়েছেন ১ হাজার ৮৬০ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির প্রার্থী কামাল পাশা আম প্রতীকে পেয়েছেন ৬৭৩ ভোট এবং মীর মোহাম্মদ রমজান আলী (স্বতন্ত্র) একতারা প্রতীকে পেয়েছেন ৪৮০ ভোট। ফল ঘোষণার সময় জিমনেসিয়ামে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ–সভাপতি অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুলসহ নগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত থাকলেও বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের কোনো নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন না।

বিজয়ী নোমান আল মাহমুদ চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি চট্টগ্রাম নগর যুবলীগের সাবেক সভাপতি এবং চট্টগ্রাম শহর ছাত্রলীগের সাবেক শিক্ষা ও পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদক।

নোমান আল মাহমুদ প্রায় পাঁচ দশক রাজনীতিতে যুক্ত থাকলেও এবারই প্রথম জনপ্রতিনিধি হয়ে সংসদে যাচ্ছেন। এর আগে, সকাল ৮টা থেকে ১৯০টি কেন্দ্রের ১ হাজার ৪১৪টি কক্ষে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহণ চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। এরপর ভোট গণনা শেষে ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

কম ভোটার উপস্থিতি এবং অভিযোগ–পাল্টা অভিযোগের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রাম–৮ (চান্দগাঁও–বোয়ালখালী) আসনের উপ নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে।

নির্বাচনের ফলাফলের ব্যাপারে জানতে চাইলে চট্টগ্রাম আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান বলেন, ‘চট্টগ্রাম–৮ আসনের ১৯০ কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হওয়ার পর বেসরকারি ফলাফলে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্র্থী নোমান আল মাহমুদ ৬৭ হাজার ২০৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচনে মোট ভোট কাস্ট হয়েছে ১৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। নির্বাচিত প্রার্থী ছাড়া অপর ৪ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে।’

নগরীর পাঁচলাইশ–চান্দগাঁও এলাকার সিটি করপোরেশনের পাঁচটি ওয়ার্ড ও বোয়ালখালী উপজেলার আটটি ইউনিয়ন পরিষদ এবং একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত চট্টগ্রাম–৮ সংসদীয় আসন।

এতে ভোটার সংখ্যা ৫ লাখ ১৭ হাজার ৬৫২ জন। তাদের মধ্যে ২ লাখ ৬৩ হাজার ৫৪৩ জন পুরুষ; ২ লাখ ৫৪ হাজার ১০৯ জন নারী।

মোট ভোটারের ১ লাখ ৮৭ হাজার ৯০২ জনের বসবাস বোয়ালখালী অংশে; বাকি ৩ লাখ ১৯ হাজার ৭৫০ জন নগরীর ভোটার।

উল্লেখ্য, এই আসনটিতে সংসদ সদস্য ছিলেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল–জাসদের নেতা মইন উদ্দিন খান বাদল। ১৯১৮ সালে অনুষ্ঠিত নির্বাচনেও তিনি আওয়ামী লীগের জোটের প্রার্থী হিসেবে নৌকা প্রতীকে জয়ী হন।

২০১৯ সালে তিনি মারা গেলে ২০২০ সালের ১৩ জানুয়ারির উপ নির্বাচনে জয়ী হয়ে সংসদে যান চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ। গত ৫ ফেব্রুয়ারি তিনি মারা গেলে সংসদের মেয়াদের আট মাস বাকি থাকতে আবার উপ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় গতকাল।

Loading