মা ও শিশু হাসপাতালে মেডিকেল সামগ্রী দিলো ‘লাভ ফর চট্টগ্রাম’

প্রকাশিত: ২:২৯ অপরাহ্ণ , জুলাই ৫, ২০২০

আবারও জীবন রক্ষাকারী মেডিকেল ইকুইপমেন্ট দিলো লাভ ফর চট্টগ্রাম।

চট্টগ্রামের বিপর্যস্ত স্বাস্থ্যসেবা কাটিয়ে উঠতে চট্টগ্রামে বেড়ে ওঠা, সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা নিজ নিজ কর্মক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠিত কিছু মানুষের ফ্রেন্ডস ফান্ডিং ইনিশিয়েটিভ ‘লাভ ফর চট্টগ্রাম’ এর পক্ষ থেকে এবার চট্টগ্রাম মা ও শিশু জেনারেল হাসপাতালে দেয়া হলো করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য দু’টি হাই ফ্লো নাজাল ক্যানোলা, নন রিব্রিদেবল মাস্ক, এন৯৫ মাস্ক ও পিপিই সামগ্রী।
গত সপ্তাহেও লাভ ফর চট্টগ্রাম নগরীর জেনারেল হাসপাতালে ১০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার, নন রিব্রিদেবল মাস্ক, এন৯৫ মাস্ক ও পিপিই সামগ্রী দান করেছিল।
চট্টগ্রাম ক্লাবে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মূল্যবান জীবন রক্ষাকারী এ সামগ্রীগুলো হস্তান্তর করেন চট্টগ্রাম চেম্বার অফ কমার্সের পরিচালক, আইএফএবির চট্টগ্রাম চ্যাপ্টারের চেয়ারম্যান এস এম আবু তৈয়ব, চট্টগ্রামের স্বনামধন্য ব্যবসায়ী মাসুদ এন্ড ব্রাদার্সের চেয়ারম্যান জনাব আবুল বাশার, চট্টগ্রামে রাশিয়ার কনস্যুলেট জেনারেল আর্কিটেক্ট আশিক ইমরান, ফিনলে প্রোপার্টিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোফাখ্খারুল ইসলাম খসরু, আর্কিটেক্ট ফারুক আহমেদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জুবাইদ আহমেদ ও আতাউল হাকিম খসরু। মা ও শিশু হাসপাতালের পক্ষে এ সামগ্রীগুলো গ্রহণ করেন মা ও শিশু হাসপাতালের সহ সভাপতি জনাব এস এম মোর্শেদ হোসেন, কোষাধ্যক্ষ জনাব রেজাউল করিম ও ডা. পারভেজ ইকবাল শরীফ।
উক্ত অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম চেম্বার অফ কমার্সের পরিচালক আবু তৈয়ব এ মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, এ বিপর্যয় সম্বন্ধে আমাদের কারোরই ধারণা ছিল না। তাই যুদ্ধক্ষেত্রে ফ্রন্টলাইন ফাইটারদের কিভাবে সাহায্য করতে হবে তাও ছিল অজানা। অন্যদিকে সব দিক থেকেই চট্টগ্রাম আজ পিছিয়ে পড়ছে। তাই ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ের এসব সম্মিলিত প্রচেষ্টা ফ্রন্ট লাইন যোদ্ধাদের সাহায্যের মাধ্যমে নগরবাসীর জীবন বাঁচিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে সাহায্য করবে।
আবুল বাশার বলেন, চট্টগ্রামের ব্যবসায়ীরাসহ ব্যক্তিগত, প্রাতিষ্ঠানিক ও সম্মিলিত উদ্যোগের কারণে খুব অল্প সময়ে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠা যাচ্ছে।
লাভ ফর চট্টগ্রামের অন্যতম উদ্যোক্তা পারটেক্স গ্রুপের এমডি ও সিটি ব্যাংকের চেয়ারম্যান জনাব আজিজ আল কায়সার সিঙ্গাপুর থেকে এক অনলাইন বার্তায় করোনাকালীন এ দুর্যোগে বন্ধুদের এ সাহসী প্রয়াসকে আরও বেগবান করার প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, ব্যক্তিগত দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে চট্টগ্রামবাসীদের কল্যাণে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত থাকবে।
কানাডা প্রবাসী চট্টগ্রামের সন্তান বিশিষ্ট আন্তর্জাতিক ব্যবসায়ী জনাব জাহিদ মিজান এই উদ্যোগের সাথে একাত্মতা ঘোষণা করে বলেন, চট্টগ্রামবাসীর দুঃসময়ে আমরা আমাদের সর্বোচ্চ মেধা আর শ্রম দিয়ে পাশে দাঁড়াবো। অন্য এক ভিডিও বার্তায় স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংক মালয়েশিয়ার সিইও চট্টগ্রামের কৃতি সন্তান আবরার আলম আনোয়ার চট্টগ্রামের সকল সামর্থ্যবান মানুষদের জেলার স্বাস্থ্যকর্মী ও বিপর্যস্ত মানুষদের পাশে দাঁড়ানোর উদাত্ত আহ্বান জানান।