সাভারে গরুর খামারে ডাকাতির ঘটনায় ৮ ডাকাত গ্রেফতার

প্রকাশিত: ১:১০ পূর্বাহ্ণ , জুলাই ২, ২০২০
বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৮ সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা জেলা উত্তর ডিবি পুলিশ। এসময় তাদের তথ্য মতে ৮ টি গরুসহ ৩ টি ট্রাক উদ্ধার করা হয়।
 
বুধবার (০১ জুলাই) সন্ধ্যায় রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা জেলা উত্তর ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবুল বাশার।
 
এর আগে বুধবার (০১ জুলাই) বিকেলে তাদের আটক করে ঢাকা জেলা উত্তরের হেফাজতে নেওয়া হয়।
 
ডিবি পুলিশ জানায়, গত ১৬ জুন সাভারের ভাকুর্তায় আব্দুস সালামের খামারের গ্রীল কেটে নৈশপ্রহরীকে বেঁধে ৮টি গরু ডাকাতি করে নিয়ে যায় আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ১৪ সদস্যরা। এঘটনায় সাভার মডেল থানায় মামলা দায়ের করে ভুক্তভোগী। এরপর অভিযানে নামে ঢাকা জেলা উত্তর গোয়েন্দা পুলিশ। পরে আশুলিয়ার শ্রীপুর, গাজিপুর, কিশোরগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলায় অভিযান চালিয়ে আন্তঃজেলা ডাকাতের মাসুদ গ্রুপের ৮ ডাকাতকে আটক করা হয়। এসময় তাদের কাছ থেকে ৩টি ট্রাকসহ ৮ টি গরু উদ্ধার করা হয়।
 
ডাকাতরা হলো- নরসিংদী জেলা সদরের পশ্চিম বেলনগর গ্রামের মৃত টুকু মিয়ার ছেলে মো: রুবেল (২৭), ময়মনসিংহ জেলার গৌরীপুর থানার চুরালী গ্রামের মৃত কিতাব আলীর ছেলে গ্রাম চুরালী, থানা গৌরীপুর জেলা ময়মনসিংহ শামিম মিয়া (২৮), নরসিংদী জেলার শিবপুর থানার ইসুপনগর গ্রামের মো: তাইজুল ইসলামের ছেলে টিপু শিকদার (২৮), নরসিংদী জেলার শিবপুর থানার উত্তর সাদারচর গ্রামের মো: গিয়াস উদ্দিনের ছেলে মাসুদ মিয়া, নরসিংদী জেলার শিবপুর থানা নোয়াদিয়া গ্রামের মৃত আবু মৃধার ছেলে মো: মিলন (৬০), চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ থানার উত্তরহাসা গ্রামের মৃত হেলু মিয়ার ছেলে মো: শাজাহান (৩০), নরসিংদী জেলার বেলাবো থানার পশ্চিম করাটিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল হেকিমের ছেলে মো: মোমেন মিয়া (২৮), নরসিংদী জেলার শিবপুর থানার মৈসাদি মাইকপাড়া গ্রামের ইসহাক মিয়ার ছেলে বাচ্চু মিয়া (২৭)। এরা গাজীপুরের বিভিন্ন স্থানে ভাড়া থেকে ডাকাতি করছিলো।
 
অভিযানে অংশ নেয়া ঢাকা জেলা উত্তর ডিবি পুলিশের উপ-পরিদর্শক আব্দুল আজিজ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পাই, এই ডাকাতিতে গাজীপুরের মাসুদ গ্রুপ ও কিশোরগঞ্জের সবুজ গ্রুপ যৌথভাবে অংশ নেয়। আমরা ছদ্ম বেশে বিভিন্ন জেলায় অভিযান চালিয়ে মাসুদ গ্রুপের দলনেতা মাসুদসহ ৮ ডাকাতকে আটক করেছি। এছাড়া ডাকাতির কাজে ব্যবহৃত ৩ টি ট্রাক জব্দ করা হয়েছে। সবুজ গ্রুপের সদস্যদের আটকের চেষ্টা চলছে।