ফুল চাষীর মুখে হাসি

প্রকাশিত: ৫:২৭ অপরাহ্ণ , ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২২

লাল গোলাপ আর হলুদ গাঁদায় মিলেমিশে একাকার রাজধানীর ফুলের বাজার। ১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসা দিবস আর বসন্ত বরণের প্রস্তুতি এতোটুকু ফিকে হয়নি করোনাভাইরাসের দাপটে। এই দিনটি উপলক্ষ্যে ভালো লাভের আশায় আছেন দেশের ফুল চাষীরা।

দেশের বিভিন্ন জেলার প্রায় দুই লাখ চাষির চাষ করা হরেক রকমের ফুল এখন রাজধানীর ফুল বাজারে। গাঁদা, গোলাপ, পদ্ম, জারবেরা, জনীগন্ধার পাশাপাশি এবারে শোভা ছড়াচ্ছে টিউলিপ।

তবে ভালোবাসার প্রতীক লাল গোলাপের চাহিদা কমেনি এতোটুকু।একটি দিনকে উপলক্ষ্য করে চাহিদা অনেকটাই বেশি, তাই দামটাও একটু চড়া, বলছেন ফুল বিক্রেতারা। খুচরা বাজারে এক পিস লাল গোলাপ কিনতে গেলে গুনতে হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা।

গাঁদা ফুলের ২০টি মালা বিক্রি হচ্ছে ২৫০ থেকে ৫০০ টাকায়। জারবেরা ১৫ থেকে ২৫ টাকা পিস। গ্লাডিওলাসের পিস ১৫ থেকে ২০ টাকা। এ বছরই প্রথম বাণিজ্যিকভাবে বিক্রি হচ্ছে টিউলিপ। প্রতি পিস টিউলিপ বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায়।

রোববার ভালোবাসা দিবস ও পহেলা ফাল্গুনের আগেরদিন দিনভর বিক্রি হবে ফুল, এই চাহিদা থাকবে ১৪ ফেব্রুয়ারি রাত পর্যন্ত। এছাড়া প্রতিবারের মত এবারেও মাসের শেষে ২১শে ফেব্রুয়ারিতে থাকবে ফুলের ব্যাপক চাহিদা।

এ বছর ৩০ থেকে ৪০ কোটি টাকার ফুল বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছেন ব্যবসায়ীরা।

ফুলের বাজার চাঙা হওয়ায় প্রায় দুই বছর পর মুখে হাসি ফুটেছে চাষিদের মুখে। তারা বলছেন, গত দুই বছর ধরে করোনায় লাগাতার যে ক্ষতির শিকার হয়েছেন তারা, এ বছর ফুল বিক্রি করে কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারবেন।

Loading