জেঁকে বসতে শুরু করেছে শীত

প্রকাশিত: ২:১২ অপরাহ্ণ , ডিসেম্বর ১৯, ২০২১

পৌষের শুরুতেই উত্তরাঞ্চলসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় জেঁকে বসতে শুরু করেছে শীত। ঘন কুয়াশা আর ঠাণ্ডা হাওয়ায় মানুষের স্বাভাবিক কাজকর্ম ব্যাহত হচ্ছে। বেশি বিপাকে নিম্নআয়ের মানুষ। শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশু ও বৃদ্ধরা।

গত দুদিন ধরে উত্তরের জনপদ রংপুরে শীতের তীব্রতা বেড়েছে। ঘন কুয়াশার চাদরে ঢাকা পড়ছে শহর বন্দর গ্রাম। বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষ।

স্থানীয়রা জানান, খুব ঠাণ্ডায় কষ্ট পাচ্ছি। হাত-পা ঠাণ্ডা হয়ে আসছে, পুরো শরীর অচল হয়ে আসছে।হিমালয়ের কাছাকাছি হওয়ায় ঠাকুরগাঁওয়ে শীত নেমেছে আরও আগেই। গত কয়েকদিন ধরে দিনের বেলা আবহাওয়া স্বাভাবিক থাকলেও রাতে প্রচণ্ড শীত অনুভূত হচ্ছে।

‘ঠাণ্ডা ও কুয়াশার জন্য কয়েক ধরে বের হওয়া যাচ্ছে না’ জানান স্থানীয়রা।ঘন কুয়াশা আর হিমেল হাওয়ায় শীতের প্রকোপ বেড়েছে গাইবান্ধায়। ঠাণ্ডায় কষ্ট বেড়েছে খেটে খাওয়া মানুষের।

দিনাজপুরের হিলিতে গত কয়েকদিন ধরেই জেঁকে বসেছে শীত। সঙ্গে কুয়াশা ও হিমেল হাওয়া।শীতের তীব্রতা বেড়ে যাওয়ায় চুয়াডাঙ্গায় ব্যাহত হচ্ছে স্বাভাবিক কাজকর্ম। খড়কুটো জ্বালিয়ে শীত নিবারণের চেষ্টা করছেন ছিন্নমূল মানুষ।

নাটোরে হাড় কাঁপানো শীতে বিপর্যস্ত জনজীবন। হিমেল হাওয়া ও শীতে মাঠে কাজ করতে পারছেন না কৃষকরা।এদিকে, ফেনীতে বেড়েছে জ্বর, ডায়রিয়া, কাশি, শ্বাসকষ্ট, নিউমোনিয়াসহ ঠাণ্ডাজনিত রোগ-বালাই। জেনারেল হাসপাতালে শয্যার চেয়ে দ্বিগুণ রোগী ভর্তি হয়েছে। অনেকেই বারান্দা ও মেঝেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। হিমশিম খাচ্ছেন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য কর্মীরা।

চিকিৎসকরা জানান, ‘শিশু ওয়ার্ডে ২৬ বেডের বিপরীতে ৬২ রোগী ভর্তি হয়েছে। এই অতিরিক্ত রোগীর চাপ সামাল দিতে গিয়ে চিকিৎসক-নার্স ও স্টাফরা হিমশিম খাচ্ছে।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে এই হাসপাতালে ঠাণ্ডাজনিত রোগী ভর্তি হয়েছে ৫ শতাধিক।

Loading