শীর্ষ করদাতা হিসেবে সম্মাননা পেল বিএটি

প্রকাশিত: ৮:৪৯ পূর্বাহ্ণ , সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২১

বাংলাদেশদেশের অন্যতম শীর্ষ কর প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিইউ) এর বিশেষ সম্মাননা সনদ পেয়েছে বিএটি বাংলাদেশ। আয়কর প্রদানে অবদান রাখায় ম্যানুফ্যাকচারিং বিভাগে বিএটি বাংলাদেশকে এই সনদ দেয়া হয়।

মঙ্গলবার (১৪ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর একটি হোটেলে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে বিএটি বাংলাদেশের চেয়ারম্যান জনাব গোলাম মইন উদ্দীন এবং এক্সটার্নাল অ্যাফেয়ার্স প্রধান জনাব শেখ শাবাব আহমেদের হাতে সনদটি তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির। বৃহৎ করদাতা ইউনিট এর কর কমিশনার মো. ইকবাল হোসেন এর সভাপতিত্বে এদিন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। এছাড়া বিভিন্ন বিভাগে শীর্ষ কর প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরাও যোগ দেন অনুষ্ঠানে।বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিইউ) এবার ২০২০-২১ অর্থবছরের নির্ধারিত রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা (২৪ হাজার কোটি) অর্জন করেছে। এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন উপলক্ষে এবার ৩০টি প্রতিষ্ঠান এবং ৩টি উৎস কর কর্তনকারী কর্তৃপক্ষ/কোম্পানিকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে বিশেষ সম্মাননা সনদ প্রদান করা হয়েছে। আয়কর এর পাশাপাশি মূসক খাতেও অবদান রাখছে বিএটি বাংলাদেশ। বিগত অর্থবছরে এ প্রতিষ্ঠানটি মূল্য সংযোজন কর (মূসক) ও সম্পূরক শুল্ক বাবদ প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করেছে। অভ্যন্তরীণ রাজস্বের প্রায় ৮% অবদান রাখছে বিএটি বাংলাদেশ। দেশের অর্থনীতির বিকাশে আয়করের গুরুত্ব উল্লেখ করে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির বলেন, “স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে বেরিয়ে বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশের কাতারে। এই মর্যাদা ধরে রাখার জন্য আমাদের প্রচুর অর্থের জোগান প্রয়োজন। আর এক্ষেত্রে রাজস্ব বিভাগের দায়িত্ব সবচেয়ে বেশি। আয়কর খাত থেকে কাঙিক্ষত সাফল্য অর্জন করতে হলে অর্থনৈতিক ব্যবস্থাপনায় আমাদের সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে।”জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম বলেন, “করদাতারা ট্যাক্স দেয় বলেই বাংলাদেশ নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতুর মতো বড় বড় প্রকল্প সম্পন্ন করতে পারছে। প্রধানমন্ত্রী সবসময় আমাদের আত্মনির্ভরশীল জাতি হিসেবে বেড়ে উঠার তাগিদ দেন। আপনাদের (করদাতাদের) সহযোগিতার ফলেই তা সম্ভব হবে।”এ প্রসঙ্গে বিএটি বাংলাদেশের চেয়ারম্যান গোলাম মইন উদ্দীন বলেন, “বিএটি বাংলাদেশে দেশের আয়কর খাতে ধারাবাহিকভাবে অবদান রেখে চলেছে। বৃহৎ করদাতা ইউনিট (এলটিইউ) এর কাছ থেকে এই বিশেষ সম্মাননা সনদ প্রাপ্তি তারই স্বীকৃতি। বাংলাদেশের উচ্চাকাক্ষ্খী লক্ষ্যমাত্রাগুলো পূরণে সহযোগী হিসেবে ভবিষ্যতেও আমরা সরকারের পাশে থাকব।