৮টি মার্কেটের ৮৮ শতাংশ প্রতিষ্ঠান ভ্যাট দেয় না

প্রকাশিত: ৫:৩২ অপরাহ্ণ , মে ২৮, ২০২১

ভ্যাট গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর রাজধানী ঢাকা, নারায়নগঞ্জ ও সাভারের আরো ৮টি মার্কেট জরিপ করে দেখতে পায় ৮৮% দোকান ভ্যাট দেয় না। এই জরিপে ১০২৪টি প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়িক তথ্য সংগ্রহ করে এই চিত্র পাওয়া যায়। 

শুক্রবার (২৮ মে) ভ্যাট গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়। ভ্যাট গোয়েন্দার তিনটি দল বৃহস্পতিবার (২৭ মে) রাজধানী ঢাকা, নারায়নগঞ্জ ও সাভারের ৮টি মার্কেট জরিপ সম্পন্ন করে। আজ এই জরিপের তথ্য বিশ্লেষণে এই চিত্র ফুটে ওঠে।

গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের উপপরিচালক তানভীর আহমেদ নারায়নগঞ্জ, সহকারী পরিচালক মুনাওয়ার মুরসালীন ঢাকায় এবং সহকারী পরিচালক মালেকীন নাসির আকন্দ সাভারের জরিপ কাজে নেতৃত্ব দেয়। তিনটি দলে ৪২ জন গোয়েন্দা কর্মকর্তা অংশ নেয়।

এই মার্কেট ৮টি হলো নারায়নগঞ্জের মার্ক টাওয়ার, সমবায় নিউ মার্কেট, সায়েম প্লাজা, আল হাকিম (পপুলার) সেন্টার; সাভারের সিটি সেন্টার; ঢাকার ট্রপিকাল আলাউদ্দীন টাওয়ার উত্তরা, আরএকে শপিং কমপ্লেক্স উত্তরা এবং সুভাস্তু নজর ভ্যালি, বাড্ডা।

এই জরিপে মোট দোকান পাওয়া যায় ১০২৪টি। এদের মধ্যে মোট ভ্যাট নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা ১২০ টি; ভ্যাট দেয় না ৯০৪টি।

জানানো হয়, জরিপ অনুসারে ভ্যাট নিবন্ধিত ১২০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মাসে ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট দেয় মাত্র ৪৫টি। বাকি ৭৫টি ৫০০০ টাকার নিচে ভ্যাট প্রদান করে। অথচ জরিপের ফল অনুসারে এদের অধিকাংশের দোকান ভাড়া, কর্মচারীর বেতন, বিদ্যুৎ ও অন্যান্য খরচ ও মুনাফা অনুসারে এই পরিমাণ ভ্যাট সঙ্গতিপূর্ণ নয় মর্মে প্রমাণ মিলেছে।

কোন কোন ক্ষেত্রে দেখা গেছে, এদের প্রায় সকলে ক্রেতার নিকট হতে ভ্যাট আদায় করে। কিন্তু তারা যথাযথভাবে সরকারের কোষাগারে ভ্যাট পরিশোধ করে না।

মাঠ পর্যায়ের এই জরিপে আরো দেখা যায়, কোন কোন মার্কেট গড়ে উঠেছে দশ বছরের অধিক সময় পূর্বে। মার্কেটের অনেক ব্যবসাও একই সময়ের। দুই বছর আগে নতুন ভ্যাট আইনও বাস্তবায়ন হয়েছে। কিন্তু এই দীর্ঘ সময়েও জরিপে প্রাপ্ত ৮৮% প্রতিষ্ঠান ভ্যাট এর আওতায় আসেনি। তবে সুভাস্তু নজর ভ্যালিতে ঢাকা উত্তর কমিশনারেট থেকে গতকাল ৫০০ দোকানকে বাধ্যতামূলক নিবন্ধন দিয়ে তা মার্কেটের নিচে ঝুলিয়ে দেয়া হয়েছে।

জরিপ প্রতিবেদন বলছে, মার্কেট থেকে ভ্যাট সংগ্রহে রাজধানীর চেয়ে ঢাকার বাইরের প্রতিষ্ঠানগুলো ভ্যাট প্রদানে অনীহা বেশি। এসব এলাকায় ভ্যাট আইন পরিপালন অপেক্ষাকৃত কম।

গত ২৫ মে নরসিংদীর দুটো শীতাতপ মার্কেটের জরিপে দেখা যায়, মার্কেট দুটোর ২৩৭ প্রতিষ্ঠানের কেউই ভ্যাট প্রদান করে না। এই মার্কেটের নাম হলো নরসিংদীর স্টেশন রোড়ের ইনডেক্স প্লাজা ও জামান শপিং কমপ্লেক্স।

ভ্যাট গোয়েন্দার নারায়নগঞ্জ ও সাভার এলাকার ২৭মের জরিপেও একই চিত্র ফুটে উঠেছে। এই দুই এলাকার ৬টি মার্কেটের ৩৭২টির মধ্যে মাত্র ১৮টি ভ্যাট নিবন্ধন গ্রহণ করেছে।বাকি ৩৫৪টি প্রতিষ্ঠান ভ্যাট এর আওতাভুক্ত নয়। যারা নিবন্ধিত তাদের অধিকাংশ আবার যথাযথভাবে ভ্যাট প্রদান করে না।

ভ্যাট গোয়েন্দার গতকালের জরিপের প্রাথমিক ফলাফল:

১) মার্ক টাওয়ার, নারায়নগঞ্জ, ঢাকা (দক্ষিণ) কমিশনারেট; মোট দোকান – ৩০টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ১টি; অনিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ২৯টি; ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট দেয় – ১টি।

২) সায়েম প্লাজা, নারায়নগঞ্জ, ঢাকা ( দক্ষিণ) কমিশনারেট; মোট দোকান – ৫০টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ৫টি; অনিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ৪৫টি; ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট দেয় – ১টি; ৫০০০ টাকার নিচে ভ্যাট দেয় –  ৪৯টি।

৩) সমবায় নিউমার্কেট, নারায়নগঞ্জ, ঢাকা ( দক্ষিণ) কমিশনারেট; মোট দোকান – ৮০টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ১ টি; অনিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ৭৯টি; ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান – ০।

৪) আল হাকিম সেন্টার (পপুলার); নারায়ণগঞ্জ, ঢাকা ( দক্ষিণ) কমিশনারেট; মোট দোকান – ১৪টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ১টি; অনিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ১৩টি; ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট দেয় – ১ টি।

৫) সিটি সেন্টার, সাভার, ঢাকা (পশ্চিম) কমিশনারেট; মোট দোকান – ১৯৮টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ১০টি; অনিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ১৮৮টি; ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট দেয় – ৮টি; ৫০০০ টাকার নিচে ভ্যাট দেয় – ২টি।

৬) ট্রপিক্যাল আলাউদ্দিন টাওয়ার, ঢাকা ( উত্তর) কমিশনারেট; মোট দোকান – ৮৩টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ৫০টি; অনিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ৩৩টি; ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট দেয় – ৮টি; ৫০০০ টাকার নিচে ভ্যাট দেয় – ৪২টি।

৭) আরএকে শপিং কমপ্লেক্স, উত্তরা, ঢাকা ( উত্তর) কমিশনারেট; মোট দোকান – ৩৩টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ২৬টি; অনিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ৭টি; ৫০০০ টাকার নিচে ভ্যাট দেয় ২৬টি।

৮) সুভাস্তু নজর ভ্যালি, বাড্ডা, গুলশান, ঢাকা (উত্তর) কমিশনারেট; মোট দোকান – ৫২৬ টি; নিবন্ধিত দোকানের সংখ্যা – ২৬টি; ৫০০০ টাকার উপরে ভ্যাট দেয় – ২৬টি জুয়েলারি দোকান; অবশিষ্ট ৫০০ টি দোকান ভ্যাট প্রদান করে না। ঢাকা উত্তর কমিশনারেট থেকে গতকালই এই ৫০০ প্রতিষ্ঠানকে বাধ্যতামূলক ভ্যাট নিবন্ধন প্রদান করে তা মার্কেটের প্রাঙ্গনে ঝুলিয়ে দেয়া হয়।

ভ্যাট আইন অনুসারে যে কোন ভ্যাটযোগ্য ব্যবসা শুরু করার পূর্বেই নিবন্ধন গ্রহণ করা বাধ্যতামূলক। মার্কেটগুলোতে খুচরা পর্যায়ে অধিকাংশ ক্ষেত্রে ৫% হারে ভ্যাট সংগ্রহ করে প্রতি মাসের ভ্যাট পরবর্তী মাসের ১৫ তারিখের মধ্যে সরকারী কোষাগারে জমা দিয়ে স্থানীয় ভ্যাট সার্কেলে রিটার্ন জমা দেয়ার বিধান রয়েছে। প্রতিটি বিক্রিতে ক্রেতাকে নির্দিষ্ট ফর্ম মূসক-৬.৩ এ চালান দিতে হবে।

এনবিআরের নির্দেশে ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদপ্তর এই বিশেষ জরিপ করছে। এই লক্ষ্যে ৪টি জরিপ দলও গঠন করেছে ভ্যাট গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর। এই ৪টি দল মাঠে নেমে রাজধানী ও রাজধানীর বাইরের মার্কেটগুলোতে এই জরিপ করছে। এই জরিপে বিভিন্ন মার্কেট সমিতি ও ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা নিচ্ছে গোয়েন্দা দল।

ভ্যাট গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর জরিপের এই ফলাফল এনবিআরের চেয়ারম্যানের নিকট প্রতিবেদন আকারে জমা দিবে। এর উপর ভিত্তি করে এনবিআর কর্মকৌশল নির্ধারণ করবে।