চট্টগ্রামে করোনায় ৮ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত: ৩:৪৬ অপরাহ্ণ , মে ৯, ২০২১

চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় ৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময় ১ হাজার ১৯৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৭৪ জন পজিটিভ শনাক্ত হয়। সংক্রমণ হার ৬ দশমিক ১৮ শতাংশ। সুস্থ্য হয়েছেন ১০৬ জন।

সিভিল সার্জন কার্যালয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, নগরীর ছয়টি ও কক্সবাজার মেডিক্যাল কলেজ ল্যাবে গতকাল শনিবার চট্টগ্রামের ১ হাজার ১৯৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় নতুন ১০৮ জনের দেহে করোনা ভাইরাসের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে। এর মধ্যে শহরের বাসিন্দা ৫৫ জন ও ৯ উপজেলার ১৯ জন।

উপজেলায় আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ সীতাকুন্ডে ৬ জন, সন্দ্বীপে ৩ জন, ফটিকছড়ি, রাউজান ও সাতকানিয়ায় ২ জন করে এবং হাটহাজারী, আনোয়ারা, বাঁশখালী ও চন্দনাইশে ১ জন করে রয়েছেন। জেলায় করোনাভাইরাসে মোট শনাক্ত সংখ্যা এখন ৫১ হাজার ৯৩ জন। এর মধ্যে শহরের ৪০ হাজার ৯১১ জন ও গ্রামের ১০ হাজার ১৮২ জন।

গতকাল করোনায় আক্রান্ত শহরের ৬ ও গ্রামের ২ রোগীর মৃত্যু হয়। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা এখন ৫৬৩ জন। এর মধ্যে শহরের ৪১৬ জন ও গ্রামের ১৪৭ জন। সুস্থতার ছাড়পত্র পেয়েছেন নতুন ১০৬ জন। ফলে মোট আরোগ্য লাভকারীর সংখ্যা ৩৭ হাজার ১৬৮ জনে উন্নীত হয়েছে।

এর মধ্যে হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন ৫ হাজার ২২০ জন এবং ঘরে থেকে চিকিৎসায় সুস্থ হন ৩১ হাজার ৯৪৮ জন। হোম কোয়ারেন্টাইন বা আইসোলেশনে নতুন যুক্ত হন ২৫ জন ও ছাড়পত্র নেন ৩০ জন। বর্তমানে কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ১ হাজার ৫২২ জন।

উল্লেখ্য, চট্টগ্রামে সর্বশেষ ৮ রোগীর মৃত্যু হয় ২৮ এপ্রিল। করোনাকালের সর্বোচ্চ ১১ জন মারা যান ২৪ এপ্রিল। ২ মে ৭ জন। গতকালের ৮ জনসহ চলতি মে মাসের প্রথম আট দিনে ৩৯ করোনা রোগীর মৃত্যু হলো। দুই মাস ৩ দিনের মধ্যে গতকাল শনাক্ত রোগীর সংখ্যাই একদিনে সর্বনিম্ন। সর্বশেষ ৫ মার্চ ৬৩ জনের দেহে সংক্রমণ শনাক্ত হয়। হার ছিল ৩ দশমিক ৯২ শতাংশ।

এছাড়া, গতকাল আক্রান্তের চেয়ে সুস্থতার সংখ্যা বেশি এবং নতুন করে কোয়ারেন্টাইনে যাওয়া ব্যক্তির চেয়ে সুস্থতার ছাড়পত্র গ্রহণ বেশি হয়েছে। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা এ দু’টো দিককেই ইতিবাচক বলে মনে করছেন।