থানায় মামলা

চরফ্যাশনে মেম্বার পদপ্রার্থীর বাবাকে অপহরণের পর হত্যার চেষ্টা

প্রকাশিত: ৭:৪৯ অপরাহ্ণ , এপ্রিল ২, ২০২১

ভোলার চরফ্যাশনের জাহানপুর ইউপি নির্বাচনে ৯ নং ওয়ার্ড মেম্বার পদপ্রার্থী নাগর ডাক্তারের পিতা আবদুর রশিদ (৫৫) কে চোখ মুখ বেঁধে অপহরণ করার অভিযোগ উঠেছে। তাকে শারিরিক নির্যাতনের পর মৃত ভেবে অচেতন অবস্থায় একটি ফসলী জমিতে ফেলে চলে গেছে অপহরণকারীরা। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে জাহানপুর ইউনিয়নের তুলা গাছিয়া বাজার সংলগ্ন এ ঘটনা ঘটে।

স্বজন ও এলাকাবাসীরা তাকে মমুর্ষ অবস্থায় উদ্ধার করে রাতেই চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করেন। এঘটনায় শশীভূষণ থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন আহতের ছেলে নাগর ডাক্তার।

থানা পুলিশ শুক্রবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আবদুর রশিদ কথা বলতে পারেননি। তবে তিনি ইশারা ইঙ্গিতে বলেন দুস্কৃতিকারীরা তাকে চোখ বেঁধে মুখে গামছা গুজে অপহরণ করে নিয়ে শারিরিক নির্যাতন করেন।

আহতের ছেলে জাহানপুর ৯ নং ওয়ার্ড ইউপি মেম্বার পদপ্রার্থী নাগর ডাক্তার জানান, রাত ১টায় তার বাবা তুলাগাছিয়া বাজার থেকে বাইসাইকেল যোগে বাসায় যাচ্ছিল। তার প্রতিদ্বন্দ্বী মেম্বার প্রার্থী আবদুস সালামের নির্দেশে ছেলে শামীম, ভাতিজা মামুন ও জাবেদ, ভাই আলিমসহ ৭/৮জন মিলে তাকে অপহরণ করে নিয়ে নির্মম নির্যাতনের পর মৃত ভেবে অচেতন অবস্থায় রাস্তার পাশে একটি ফসলী জমিতে ফেলে রাখে। দিকবিদিক খোঁজাখুঁজির এক পর্যায়ে তাকে ওই জমিতে পাওয়া যায়। নাগর আরো জানায় ইতোপূর্বে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আব্দুস সালাম ও তার লোকজন ওই এলাকার অন্য একজনকে অপহরণ করে মেরে ফেলেছে। ওই ঘটনায় মামলা চলমান রয়েছে। এটাই তার নেশা ও পেশা।

অভিযোগের বিষয়ে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আবদুস সালাম বলেন, এঘটনায় আমার ছেলে ভাই ভাতিজা কেউ জড়িত নয়। অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং উদ্দেশ্য প্রনোদিত।

চরফ্যাশন হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক জাহিদ হাসান জানান, তার চিকিৎসা চলছে, অবস্থা উন্নতির দিকে।

শশীভূষণ থানার অফিসার ইনচার্জ মো.রফিকুল ইসলাম জানান, লিখিত অভিযোগের পেয়েছি। পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।