‘নৈতিক মূল্যবোধ সৃষ্টিতে ধর্মীয় শিক্ষার বিকল্প নেই’

প্রকাশিত: ৫:২৪ অপরাহ্ণ , ফেব্রুয়ারি ৪, ২০২১

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান এমপি বলেছেন, মানবিক ও নৈতিক মূল্যবোধ জাগ্রত করতে ধর্মীয় শিক্ষার বিকল্প নেই। নৈতিকতা ও মূল্যবোধই ধর্মের মূল শিক্ষা। আজ বৃহস্পতিবার মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম ঢাকা জেলার আয়োজনে ভার্চুয়াল কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, নৈতিকতা ও মূল্যবোধই মানুষকে অন্য সব প্রাণী থেকে আলাদা করে। যার নীতি-নৈতিকতা নেই, মানবিক মূল্যবোধ নেই; সে ধার্মিক হতে পারে না। কারণ ধর্মের শিক্ষাই হলো সত্যতা ও সততা।

এসময় মানবিক মূল্যবোধ ও নৈতিকতা সম্পন্ন জাতি গঠনে মন্দির ভিত্তিক শিশু শিক্ষা কার্যক্রমের প্রশংসা করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।

ঢাকা জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে কর্মশালায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব নুরুল ইসলাম পিএইডি, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাষ্টের ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত পাল, বাংলাদেশ আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি নির্মল রঞ্জন গুহ, অতিরিক্ত সচিব রনজিত কুমার, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাষ্টের সচিব বিষ্ণু কুমার সরকার, উপসচিব ও উপপ্রকল্প পরিচালক সৌরেন্দ্রনাথ সাহা।

এছাড়াও কর্মশালায় বক্তব্য রাখেন- ঢাকা জেলার অতিরিক্ত প্রলিশ সুপার (অপরাধ দক্ষিণ) হুমায়ন কবির, কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অমিত দেবনাথ, ঢাকা জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বরুন ভৌমিক নয়ন, মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের ঢাকা জেলা প্রকল্পের সহকারী পরিচালক পিযুষ কান্তি সরকার, মাস্টার ট্রেইনার সমীর বিশ্বাস, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদ ঢাকা জেলার সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ সাহা, দোহার উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সাংবাদিক অমিতাভ অপু, নবাবগঞ্জ উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক অনুপম দত্ত নিপু প্রমূখ।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন- মন্দিরভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের প্রকল্প পরিচালক অতিরিক্ত সচিব রনজিত কুমার দাস। সঞ্চালনা করেন উপপ্রকল্প পরিচালক কাকলী মজুমদার।

ঢাকা জেলার প্রতিটি উপজেলার মন্দির ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রমের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও শিক্ষকরা ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠানে যুক্ত ছিলেন।