ধামরাইয়ে মধু সংগ্রহ ও বিক্রি করে স্বাবলম্বী আবু তাহের

প্রকাশিত: ১১:৪৯ পূর্বাহ্ণ , জানুয়ারি ১৯, ২০২১

ঢাকার ধামরাই ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য ইকুরিয়া গ্রামের আবু তাহের অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমেই সরিষা ফুলের ও অন্যান্য সময়ে মৌমাছি দিয়ে মধু সংগ্রহ করে আজ তিনি স্বাবলম্বী। এই ইউপি সদস্য আবু তাহের প্রায় ১৮ বছর ধরে মধু সংগ্রহ করে এলাকায় বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। ২০১৫ সালে তিনি ধামরাই সদর ইউনিয়ন থেকে ইউপি সদস্য নির্বাচিত হলেও এলাকাবাসী তাকে এখনও ‘মধু তাহের’ বলেই ডাকেন। এ মৌমাছি পালন ও মধু সংগ্রহ করে তিনি স্বাবলম্বী হয়েছেন।ধামরাই উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় যেদিকেই দু’চোখ যায়, শুধুই হলুদ ফুলে ফুলে বিস্তৃত এলাকার সরিষা ক্ষেত। প্রতিবছরের মতো এবারও ধামরাইয়ে সরিষার বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছে উপজেলা কৃষি বিভাগ। এ সরিষা ক্ষেত থেকে ইতোমধ্যে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ২০—২৫ মৌচাষি ও এনজিও ২০—৩০ দিন ধরে ধামরাই সদর, ভাড়ারিয়া, মহিশাষী, বেলিশ্বর ও কুল্লা ইউনিয়নে মৌ—বাক্স বসিয়ে এ মধু সংগ্রহ করছেন। এসব এলাকা থেকে প্রতিবছর কয়েক কোটি টাকার মধু সংগ্রহ করে বহু বেকার যুবক স্বাবলম্বী হয়েছেন।ধামরাইয়ের ইকুরিয়া গ্রামের আবু তাহের জানান, এইচএসসি পাস করার পর কোনো চাকরি না পেয়ে ২০০০ সালে সাতক্ষীরা এলাকার আফজাল হোসেন নামের এক ব্যক্তিকে তার গ্রামের সরিষা ক্ষেতে মধু সংগ্রহ করতে দেখেন। তখন তার মধু সংগ্রহ দেখে তিনিও ২০০০ সালে জাতীয় যুব উন্নয়ন ও ২০০২ সালে বিসিক থেকে তিন মাসের প্রশিক্ষণ নিয়ে প্রথমে চার হাজার টাকা দিয়ে চারটি বাক্সসহ মৌমাছি ক্রয় করেন। পরে মৌচাষ লাভজনক বলে এ পেশা ছেড়ে অন্য কোনো পেশায় যাননি। প্রতিবছরের মতো এবারও গত ২০—৩০ দিন আগে নিজ এলাকায় ইকুরিয়া গ্রামে সরিষা ক্ষেত থেকে মধু সংগ্রহ করছেন। এখন তার খামারে ১৬১টি মৌ—বাক্স ও ১০ শ্রমিক রয়েছেন। তার এ ১৬১টি মৌ—বাক্স থেকে এ বছর মধু বিক্রি হবে ১২ থেকে ১৫ লাখ টাকা। ধামরাইয়ের পর মধু সংগ্রহ করতে যাবেন গাজীপুর, সিরাজগঞ্জ ও সুন্দরবনে। বছরের ছয় মাসই বিভিন্ন এলাকায় মধু সংগ্রহ করতে যাযাবরের মতো ঘুরতে হয় তাকে। আর বাকি ছয় মাস ঘরে বসে মৌমাছিকে চিনিসহ বিভিন্ন খাদ্য খাওয়াতে হয়। আবু তাহের ধামরাইয়ে বাক্সের মধ্যে মৌমাছি পালন করে গড়ে তুলেছেন ‘মৌমাছি কলোনি’। ইকুরিয়া গ্রামের শুধু আবু তাহেরই নন, সরিষা ক্ষেত থেকে মৌমাছি দিয়ে মধু সংগ্রহ করছেন। ধামরাই উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আরিফুল হাসান বলেন, প্রতিবছরের মতো এবারও দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মৌচাষিরা ধামরাইয়ের সরিষা ক্ষেত থেকে শত শত মণ মধু সংগ্রহ করে লাখ লাখ টাকা উপার্জন করছেন। আর মৌমাছি দিয়ে সরিষা ক্ষেত থেকে মধু সংগ্রহ করলে সরিষার ফলনও ভালো হয়।